শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বিনাশকারী তরঙ্গঃ সমুদ্রের যে তরঙ্গ দ্বারা উপকূলভাগের ক্ষয় বা বিনাশ হয়, তাকেই বিনাশকারী তরঙ্গ বলে । সাধারণত প্রচন্ড ঝড়-ঝঞ্ঝার সময় সমুদ্রতরঙ্গ প্রবলভাবে শক্তিশালী হয়ে বিশালাকার ধারণ করে উপকূলে আছড়ে পড়ে । এই জাতীয় তরঙ্গে সম্মুখতরঙ্গ অপেক্ষা অন্ত:তরঙ্গের শক্তি অধিক প্রবল হয় । ফলস্বরূপ এই তরঙ্গের দ্বারা উপকূল ক্ষয়প্রাপ্ত হয়ে ক্ষয়জাত পদার্থসমূহকে সমুদ্রগর্ভে নিক্ষেপ করে । এই তরঙ্গকে বিনাশকারী তরঙ্গ বলে । গঠনকারী তরঙ্গ: সমুদ্রের যে তরঙ্গের দ্বারা উপকূলের গঠনকাজ সাধিত

বিস্তারিত
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ভারতের পশ্চিমাঞ্চলে যথা – মহারাষ্ট্রের মুম্বাই, পুনে, নাগপুর অঞ্চলে এবং গুজরাটের আমেদাবাদ, সুরাট অঞ্চলে কার্পাস বয়ন শিল্পের একদেশীভবন ঘটেছে । এই কেন্দ্রীভবনের পিছনে দায়ী কারণগুলি হলো নিম্নরূপ – প্রাকৃতিক কারণঃ কাঁচামালের সহজলভ্যতাঃ মহারাষ্ট্রের কৃষ্ণমৃত্তিকা অঞ্চলে (খান্দেশ, বিদর্ভ ও মারাঠাওয়ারা) এবং গুজরাটের সমভূমিতে (আমেদাবাদ, সুরেন্দ্রনগর, ভারুচ) এই শিল্পের কাঁচামাল কার্পাস তুলা প্রচুর পরিমাণে উৎপাদিত হয় । তাই সংশ্লিষ্ট শিল্পাঞ্চলগুলিতে অতি সহজেই ও কম খরচে কাঁচামাল আমদানি করা যায় । অনুকূল জলবায়ুঃ

বিস্তারিত
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সংজ্ঞাঃ  বার্ষিক ৫০ সেমিরও কম বৃষ্টিপাতযুক্ত অঞ্চলে জলসেচের সুবিধা ছাড়াই খরাসহ্যকারী কৃষিফসল উৎপাদনের কৃষিপদ্ধতিকে শুষ্ক কৃষি (Dry Farming) বলে । পরিলক্ষিত অঞ্চলঃ ভারতের পশ্চিমাঞ্চলের রাজস্থান, পাঞ্জাব, গুজরাট, মহারাষ্ট্রের স্থানবিশেষে এবং দক্ষিণ ভারতের বিস্তীর্ণ অঞ্চল জুড়ে শুষ্ক কৃষি লক্ষ্য করা যায় । ভারত ছাড়াও ইজরায়েল, লেবানন, সিরিয়া, অস্ট্রেলিয়ার পশ্চিমাংশ, মধ্য চীন, USA এর পশ্চিমাঞ্চলে এই কৃষি পরিচালিত হয় । উৎপাদিত ফসলঃ জোয়ার, বাজরা, রাগি প্রভৃতি মিলেট জাতীয় শস্য এবং ভুট্টা, সারগম প্রভৃতি শুষ্ক

বিস্তারিত
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সংজ্ঞাঃ নিয়মিত এবং পর্যাপ্ত বৃষ্টিপাত যুক্ত অঞ্চলে জলসেচ ছাড়াই কেবলমাত্র বৃষ্টির জলের উপর নির্ভর করে যে কৃষিকাজ পরিচালিত হয় তাকে আর্দ্র কৃষি (Humid Farming) বলে । পরিলক্ষিত অঞ্চলঃ ভারতের মৌসুমী বৃষ্টিবহুল অঞ্চলে আর্দ্র কৃষি দেখা যায় । এছাড়াও দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার অন্যান্য দেশগুলো এবং উত্তর আমেরিকার মেক্সিকো ও দক্ষিণ আমেরিকার ব্রাজিলের পূর্বভাগে আর্দ্র কৃষি লক্ষ্য করা যায় । উৎপাদিত ফসলঃ ধান(আমন), পাট, ইক্ষু প্রভৃতি । বৈশিষ্ট্যঃ আর্দ্র কৃষি –

বিস্তারিত
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

ভূমিকাঃ পেট্রোরসায়ন শিল্পকে সূর্যোদয় শিল্প বা উদীয়মান শিল্প বলা হয় । ভারতে এই শিল্পের বয়স মাত্র ৫০ বছরের কিছু বেশী । তৃতীয় পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনার শেষের দিকে ১৯৬৬ সাল থেকে দেশে এই শিল্পের সূত্রপাত ঘটে । ১৯৬৬ সালে ট্রম্বেতে Union Carbide Limited প্রথম পেট্রোরসায়ন কারখানা স্থাপন করে । ১৯৬৭-৬৮ সালে আরও দুটি কারখানা বেসরকারী মালিকানায় স্থাপিত হয় । ১৯৬৯ সালে ভারত সরকার গুজরাটের বদোদরায় এবং পরবর্তী কালে আসামের বংগাইগাঁওতে বৃহদাকার পেট্রোরসায়ন

বিস্তারিত
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সংজ্ঞাঃ কেন্দ্রীয় বাণিজ্য এলাকা বা সংক্ষেপে CBD (Central Business District) হলো শহর বা নগরের প্রধান বাণিজ্য স্থান । শহরের প্রধান প্রধান বাণিজ্যপথ, ব্যাঙ্ক, অফিস এবং তাদের গুদাম ও বিশেষ কিছু দোকান নিয়ে হলো এই কেন্দ্রীয় বানিজ্য এলাকা । এইসব এলাকায় যারা কাজ করে তারা এই স্থান ও তার লাগোয়া এলাকার জনগণকে ব্যবসা বাণিজ্যের মাধ্যমে সেবা প্রদান করে । অন্যদিকে, কেন্দ্রীয় বাণিজ্য এলাকার বাইরে দোকান অফিস বাণিজ্যিক স্থান অপেক্ষাকৃত কম থাকে

বিস্তারিত
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সংজ্ঞাঃ একটি বিশেষ স্থানের বিভিন্ন বয়স গোষ্ঠীর নারী ও পুরুষ জনসংখ্যার বন্টনকে লেখচিত্রভিত্তিক সহজতম পদ্ধতির সাহায্যে বয়সভিত্তিক ও লিঙ্গভিত্তিকভাবে উপস্থাপন করা হলে যে পিরামিডাকৃতি অবয়ব পাওয়া যায়, তাকেই বয়স-লিঙ্গ পিরামিড (Age-Sex Pyramid) বলে । নিয়ন্ত্রকঃ বয়স-লিঙ্গ পিরামিডের নিয়ন্ত্রক হিসেবে জন্মহার, শিশু মৃত্যুহার, আয়ুষ্কাল, পরিব্রাজন প্রভৃতি বিষয়গুলি তাৎপর্যপূর্ণ। বৈশিষ্ট্যঃ বয়স-লিঙ্গ পিরামিড – এর বৈশিষ্ট্যগুলি হলো নিম্নরূপ – এর অনুভূমিক অক্ষের একদিকে পুরুষ ও অপরদিকে নারী জনসংখ্যা শতকরা হিসাবে প্রকাশ করা হয়

বিস্তারিত
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

পেডোক্যাল মৃত্তিকা (Pedocal Soil): আক্ষরিক অর্থঃ Pedocal = Ped + Cal অর্থাৎ, মৃত্তিকা + ক্যালসিয়াম কার্বনেট সংজ্ঞাঃ বাষ্পীভবন অপেক্ষা বৃষ্টিপাত কম হলে (শুষ্ক জলবায়ুতে) কৈশিক প্রক্রিয়ায় মৃত্তিকার নীচ থেকে ওপরের দিকে ক্যালসিয়াম কার্বনেট ও লবণ উঠে আসে মাটির উপরিস্তরে সঞ্চিত হয় । এই প্রকার মৃত্তিকা পেডোক্যাল মৃত্তিকা (Pedocal Soil) নামে পরিচিত । উদাহরণঃ চেষ্টনাট মৃত্তিকা ও চারনোজেম মৃত্তিকা পেডোক্যাল মৃত্তিকার প্রকৃষ্ট উদাহরণ । অবস্থানঃ সাধারণত শুষ্ক জলবায়ুগত আঞ্চলিক অবস্থানে যেখানে

বিস্তারিত
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

লোহার উপাদানের পরিমাণের উপর ভিত্তি করে খনিজ লৌহ আকরিককে মুলত চারটি বর্গে বিভক্ত করা হয় । যথা – ক) ম্যাগনেটাইট (Fe3O4): কৃষ্ণবর্ণের যে লৌহ আকরিকে ৭৫ শতাংশেরও বেশি লৌহ উপাদান থাকে, তাকে ম্যাগনেটাইট (Fe3O4) বলে ।  বৈশিষ্ট্যঃ ম্যাগনেটাইটের বৈশিষ্ট্যগুলি হলো নিম্নরূপ – লৌহ আকরিকগুলির মধ্যে এটি সর্বোৎকৃষ্ট ।  এর বাণিজ্যিক গুরুত্ব সবথেকে বেশি । এটি পৃথিবীর খুব সীমিত স্থানে পাওয়া যায় । এটি প্রাকৃতিক চৌম্বক হিসেবে ব্যবহৃত হয় । এটি

বিস্তারিত
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

বুৎপত্তিগত অর্থঃ তামিল শব্দ ‘কটাল’ এর অর্থ ‘সমুদ্র’ ।  সংজ্ঞাঃ অমাবস্যা ও পূর্ণিমা তিথিতে চাঁদ ও সূর্য এবং পৃথিবী একই সরলরেখায় অবস্থান করে । একে সিজিগি (Syzygy) অবস্থান বলে । এই অবস্থানে ত্রিমুখী প্রভাবে জোয়ারের জল অনেক বেশি ফুলে ওঠে । একে ভরা কোটাল বা তেজ কোটাল বলে । উৎপত্তিঃ চাঁদ পৃথিবীকে একবার পরিক্রমণ করতে যে সময় নেয়, তাকে চান্দ্রমাস বলে । চান্দ্রমাসের এক একটি দিনকে বলে তিথি । তিথি

বিস্তারিত