সুয়েজ খাল (Suez canal):

  • পরিচিতিঃ সুয়েজ খাল পৃথিবীর দীর্ঘতম কৃত্রিম সামুদ্রিক খাল, যা মিশরের সিনাই উপদ্বীপের পশ্চিমে অবস্থিত । এই খালটি উত্তরে ভূমধ্যসাগর ও দক্ষিনে লোহিত সাগরকে যুক্ত করেছে । ২০১০ সালে গৃহীত তথ্যের ভিত্তিতে এই খালের দৈর্ঘ্য প্রায় ১৯০ কিমি, প্রস্থ প্রায় ২০৫ মিটার এবং গভীরতা প্রায় ২৪ মিটার । এই খালের প্রবেশপথে ভূমধ্যসাগরের তীরে পোর্ট সৈয়দ এবং শেষপ্রান্তে লোহিত সাগরের তীরে পোর্ট সুয়েজ অবস্থিত । এটি একটি একলেন বিশিষ্ট খাল, যাতে জলতল নিয়ন্ত্রণের জন্য কোনো লকগেট নেই । সমুদ্রের জল এই খালের ভিতর দিয়ে অবাধে প্রবাহিত হয় । ফরাসি প্রকৌশলী ফার্দিনান্দ দে লেসেপ্স – এর তত্ত্বাবধানে ১৮৫৯ সালে এই খালের নির্মাণকার্য শুরু হয়, যা ১৮৬৯ সালে সম্পন্ন হওয়ার পর নৌ-চলাচলের জন্য খুলে দেওয়া হয় । এই খালের মালিকানা ও ব্যবস্থাপনা মিশরের সুয়েজ ক্যানাল অথরিটির উপরে ন্যাস্ত ।
  • নির্মাণের উদ্দেশ্যঃ সুদূর অতীতে উত্তরে ইউরোপ ও দক্ষিণে এশিয়া মহাদেশের বিস্তীর্ণ ভূ-ভাগে জলপথে পরিবহণ করতে গেলে আফ্রিকা মহাদেশ ঘুরে তা সম্পন্ন করতে হত । এর ফলে একদিকে যে শুধু পরিবহণ খরচ ও সময়ই বহুলাংশে বৃদ্ধি পেত তা নয়, সেইসাথে জাহাজগুলিকে উত্তমাশা অন্তরীপসংশ্লিষ্ট দূর্যোগপূর্ণ বিপজ্জনক আবহাওয়ার মধ্য দিয়েও চলাচল করতে হত । কখনও কখনও পণ্য জাহাজ থেকে নামিয়ে মিশরের স্থলপথ অতিক্রম করে , ভূমধ্যসাগর থেকে লোহিত সাগরে এবং লোহিত সাগর থেকে ভূমধ্যসাগরে অপেক্ষমাণ জাহাজে পারাপার করা হত । যা সমাধানের উদ্দেশ্যে ১৮৬৯ সালে সুয়েজ খাল নির্মাণ সম্পন্ন হওয়ার পর তা নৌ-চলাচলের জন্য খুলে দেওয়ায় সরাসরি উত্তরে ইউরোপের সাথে দক্ষিণে এশিয়া মহাদেশের নৌ-যোগাযোগ অনেক সহজতর হয়েছে । উদাহরণস্বরূপ বলা যায়, প্রাচ্য ও পাশ্চাত্য দেশগুলোর মধ্যে সরাসরি নৌ-যোগাযোগ স্থাপন করে এই খালটি কলকাতা ও লন্ডনের মধ্যে প্রায় ৫৬০০ কিমি, মুম্বই ও লন্ডনের মধ্যে প্রায় ৭০০০ কিমি এবং সিঙ্গাপুর ও লন্ডনের মধ্যে প্রায় ৫৩০০ কিমি দূরত্ব কমিয়ে দিয়েছে ।
  • সুবিধা / গুরুত্বঃ সুয়েজ খাল – এর সুবিধা / গুরুত্বগুলি হল নিম্নরূপ –
    • এই খালটি প্রাচ্য ও পাশ্চাত্য দেশগুলোর মধ্যে যোগাযোগ স্থাপন করেছে ।
    • সুয়েজ খালের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক বাণিজ্যের প্রায় ২০% পণ্যদ্রব্য পরিবাহিত হয়, যে কারণে এর বাণিজ্যিক গুরুত্ব অপরিসীম ।
    • শুধুমাত্র পণ্য পরিবহনের ক্ষেত্রেই নয়, যাত্রী পরিবহনের ক্ষেত্রেও এর গুরুত্ব তাৎপর্যপূর্ণ ।
    • প্রাচ্যের দেশগুলি থেকে উৎপাদিত বিভিন্ন প্রকার কৃষিদ্রব্য এবং খনিজ দ্রব্য ইউরোপের বিভিন্ন দেশে পাঠানো হয় এবং সেখান থেকে বিভিন্ন প্রকার শিল্পজাত দ্রব্য ও যন্ত্রপাতি আমদানি করা হয় ।
    • সুয়েজ খালের মাধ্যমে মধ্যপ্রাচ্য, রাশিয়া ও রোমানিয়া অঞ্চলের খনিজ তেল বাণিজ্যিক উদ্দেশ্যে পরিবহন করা হয় ।
    • পশ্চিম ইউরোপের কয়লা ও মধ্যপ্রাচ্যের খনিজ তেল এই খালপথে চলাচলকারী জাহাজগুলির জ্বালানি হিসাবে সরবরাহ করা হয় ।
    • নিকটবর্তী অঞ্চল জনবহুল ও উন্নত এবং বন্দরের সংখ্যাও যথেষ্ট বেশী, যা নৌ-চলাচল ও মেরামতিসহ অন্যান্য প্রয়োজনের জন্য সহায়ক ।
  • অসুবিধাঃ সুয়েজ খাল – এর অসুবিধাগুলি হল নিম্নরূপ –
    • এই খালপথে শুল্কের হার অত্যন্ত বেশী ।
    • সংকীর্ণ হওয়ায় বড় বড় জাহাজ চলাচলে অসুবিধা হয় ।
    • মাত্র ১৬৬ কিমি পথ অতিক্রম করতে প্রায় ১০-১২ ঘন্টা সময় লেগে যায় ।
    • এই অঞ্চলের জটিল রাজনৈতিক পরিস্থিতির জন্য এই খালপথে জাহাজ চলাচল প্রায়শই অসুবিধাজনক হয়ে পড়ে ।
« অপেক্ষাকৃত পুরনো জমা Recent Entries »