শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  • সংজ্ঞাঃ  বার্ষিক ৫০ সেমিরও কম বৃষ্টিপাতযুক্ত অঞ্চলে জলসেচের সুবিধা ছাড়াই খরাসহ্যকারী কৃষিফসল উৎপাদনের কৃষিপদ্ধতিকে শুষ্ক কৃষি (Dry Farming) বলে ।
  • পরিলক্ষিত অঞ্চলঃ ভারতের পশ্চিমাঞ্চলের রাজস্থান, পাঞ্জাব, গুজরাট, মহারাষ্ট্রের স্থানবিশেষে এবং দক্ষিণ ভারতের বিস্তীর্ণ অঞ্চল জুড়ে শুষ্ক কৃষি লক্ষ্য করা যায় । ভারত ছাড়াও ইজরায়েল, লেবানন, সিরিয়া, অস্ট্রেলিয়ার পশ্চিমাংশ, মধ্য চীন, USA এর পশ্চিমাঞ্চলে এই কৃষি পরিচালিত হয় ।
  • উৎপাদিত ফসলঃ জোয়ার, বাজরা, রাগি প্রভৃতি মিলেট জাতীয় শস্য এবং ভুট্টা, সারগম প্রভৃতি শুষ্ক কৃষির প্রধান উৎপাদিত কৃষিফসল ।
  • বৈশিষ্ট্যঃ শুষ্ক কৃষি – র বৈশিষ্ট্যগুলি হলো নিম্নরূপ –
    • ক) ভূপৃষ্ঠের নিকটবর্তী ভৌমজলস্তর থেকে জল কৈশিক প্রক্রিয়ায় মাটির উপরিভাগে আসে ।
    • খ) স্থানীয় জলের যথাযথ ব্যবহারের মধ্য দিয়ে এই কৃষি পরিচালিত হয় ।
    • গ) মাত্রাতিরিক্ত বাষ্পীভবন রোধ করার জন্য ভেজা কৃষিজমিতে ধুলো-বালির আস্তরণ ছড়িয়ে দেওয়া হয় ।
    • ঘ) কৃষিক্ষেত্রগুলি আয়তনে অপেক্ষাকৃত ছোট প্রকৃতির হয় ।
    • ঙ) দিন ও রাতের পরিবেশের তারতম্যকে কাজে লাগিয়ে কৃষিফসলগুলি অভিযোজনের মাধ্যমে বৃদ্ধি লাভ করে ।

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *