আবহবিকার (Weathering):

বুৎপত্তিগত অর্থঃআবহবিকার’ বা ‘Weathering’ শব্দটি এসেছে আবহাওয়া বা Weather থেকে, যার আক্ষরিক অর্থ আবহাওয়ার দ্বারা ভূপৃষ্ঠের পরিবর্তন । জি.কে. গিলবার্ট সর্বপ্রথম “Weathering” শব্দটি ব্যবহার করেন ।

সংজ্ঞাঃ আবহাওয়ার বিভিন্ন উপাদান যথা- উষ্ণতা, আর্দ্রতা, বৃষ্টিপাত, তুষারপাত প্রভৃতির প্রভাবে ভূপৃষ্ঠস্থ শিলাসমূহের উপরিভাগ যান্ত্রিকভাবে চূর্ণবিচূর্ণ ও রাসায়নিকভাবে বিয়োজিত হয় । এই প্রক্রিয়া আবহবিকার (Weather ) নামে পরিচিত ।                                                   ভূবিজ্ঞানী W.D. Thornbury এর মতে, “Weathering may be defined as the disintegration or, decomposition of rock in place….”

উদাহরণঃ উষ্ণ মরু অঞ্চলে শিলার বিচূর্ণীভবন

বৈশিষ্ট্যঃ আবহবিকার (Weathering) – এর বৈশিষ্ট্যগুলি হলো নিম্নরূপ –

  • ক) আবহবিকারের ফলে শিলাসমূহের উপরিভাগ চূর্ণবিচূর্ণ অবস্থায় মূল শিলাস্তর থেকে বিয়োজিত হয়ে ঐ স্থানেই অবস্থান করে ।                                              
  • খ) আবহবিকার সম্পন্নকারী মূল শক্তি আবহাওয়ার মূল উপাদানগুলি (উষ্ণতা, আর্দ্রতা প্রভৃতি) হলেও মানুষসহ জীবজগৎও এই প্রক্রিয়ায় অংশগ্রহণ করে ।     
  • গ) এটি একটি স্থৈতিক প্রক্রিয়া ।                                                    
  • ঘ) আবহবিকার উষ্ণ শুষ্ক ও আর্দ্র উভয় অঞ্চলেই প্রকৃতিগত তারতম্য অনুযায়ী ক্রিয়াশীল হয়ে থাকে ।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.