অভিকর্ষ বায়ু (Gravity Wind):

সংজ্ঞাঃ পৃথিবীর বরফাচ্ছন্ন উঁচু উপকূল অঞ্চলগুলিতে শীতল ও ভারী বায়ুপ্রবাহ নিজ ভারে স্থলভাগ থেকে সমুদ্রভাগের দিকে প্রবাহিত হয় । এইপ্রকার বায়ুপ্রবাহকে অভিকর্ষ বায়ু (Gravity Wind) বলে ।

অবস্থানঃ আন্টার্কটিকা ও গ্রীনল্যান্ডের উপকূল অঞ্চলে নিয়মিতভাবে অভিকর্ষ বায়ু প্রবাহিত হয় । এছাড়াও, শীতকালে ইটালীর অ্যাড্রিয়াটিক সমুদ্রের উঁচু উপকূল যখন বরফে আচ্ছাদিত হয়ে পড়ে তখন এইপ্রকার বায়ুপ্রবাহের আবির্ভাব ঘটে ।

উৎপত্তিঃ মেরুবৃত্ত প্রদেশীয় নিম্নচাপ বলয় থেকে উত্থিত ঊর্দ্ধগামী বায়ুস্রোতটি মেরু জেট বায়ুপ্রবাহ দ্বারা বিভক্ত হয়ে মেরু অঞ্চলের দিকে প্রবাহিত হওয়ার পর মেরু অঞ্চলের নিকট উপস্থিত হলে তা পূর্বাপেক্ষা আরও শীতল ও ভারী হয়ে মাধ্যাকর্ষণ শক্তির টানে নীচে নেমে এসে নিজ ভারে স্থলভাগ থেকে সমুদ্রভাগের দিকে অভিকর্ষ বায়ুরূপে প্রবাহিত হয় ।

বৈশিষ্ট্যঃ অভিকর্ষ বায়ু – র বৈশিষ্ট্যগুলি হলো নিম্নরূপ –
ক) গ্রীষ্মকালে বরফ গলে গেলে এইপ্রকার বায়ুপ্রবাহের বিলুপ্তি ঘটে এবং তার পরিবর্তে উক্ত স্থানে দৈনিক ভিত্তিতে স্থলবায়ুসমুদ্রবায়ু সৃষ্টি হয় ।
খ) এইপ্রকার বায়ুপ্রবাহের গতিবেগ ঘন্টায় ৬০ – ৮০ কিলোমিটার হলেও কখনও কখনও তা ১০০ – ১৫০ কিলোমিটার পর্যন্তও হতে পারে ।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.