বায়ুচাপ বলয় (Pressure Belts of Wind):

☻ ভূপৃষ্ঠের উপর নির্দিষ্ট দূরত্ব অন্তর সমধর্মী বায়ুস্তর অনুভূমিকভাবে প্রায় হাজার কিলোমিটার জুড়ে পুরো পৃথিবীকে কয়েকটি বলয়ের আকারে বেষ্টন করে আছে । এগুলি বায়ুচাপ বলয় (Pressure Belts of Wind) নামে পরিচিত ।
চাপের তারতম্য অনুসারে ভূ-পৃষ্ঠকে সাতটি নির্দিষ্ট বায়ুচাপ বলয়ে বিভক্ত করা হয়েছে । যথা – ১. নিরক্ষীয় নিম্নচাপ বলয়, ২. কর্কটীয় উচ্চচাপ বলয়৩. মকরীয় উচ্চচাপ বলয়, ৪. সুমেরুবৃত্ত প্রদেশীয় নিম্নচাপ বলয়৫. কুমেরুবৃত্ত প্রদেশীয় নিম্নচাপ বলয়, ৬. সুমেরুদেশীয় উচ্চচাপ বলয়৭. কুমেরুদেশীয় উচ্চচাপ বলয় । এগুলি সম্পর্কে নীচে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো –

বায়ুচাপ বলয় (Pressure Belts of Wind)

বায়ুচাপ বলয় (Pressure Belts of Wind)

১. নিরক্ষীয় নিম্নচাপ বলয়ঃ নিরক্ষরেখার উভয়পাশে ৫°-১০° অক্ষাংশের মধ্যে অবস্থিত নিম্নচাপ অঞ্চলটি নিরক্ষীয় নিম্নচাপ বলয় নামে পরিচিত ।

*** নিরক্ষীয় অঞ্চলের বায়ু উষ্ণ ও হালকা হয়ে সর্বদা ঊর্দ্ধগামী হয় । ফলে এখানে বায়ুর সমান্তরাল বা পার্শ্বপ্রবাহ বিশেষ দেখা যায় না । তাই এই অঞ্চলে বায়ুমন্ডলে সবসময় শান্তভাব লক্ষ্য করা যায় । সেইজন্য এই অঞ্চলকে নিরক্ষীয় শান্ত বলয় বা ডোলড্রাম (Doldrum) বলা হয় ।

*** নিরক্ষীয় অঞ্চলে বায়ু উষ্ণ ও হালকা হয়ে সর্বদা ঊর্দ্ধগামী হয় । ফলে এই অঞ্চলে প্রায় সারাবছর ধরেই নিম্নচাপ সৃষ্টি হয় । এই নিম্নচাপজনিত বায়ূর শূণ্যতা পূরণ করার জন্য এই অঞ্চলে উত্তর-পূর্ব আয়ন বায়ুদক্ষিণ-পূর্ব আয়ন বায়ু ছুটে এসে পরস্পরের সাথে মিলিত হয় । সেই কারণে একে আন্তঃক্রান্তীয় সম্মিলন অঞ্চল বা আন্তঃক্রান্তীয় মিলন অঞ্চল অথবা আন্তঃক্রান্তীয় অভিসরণ বলয় (ITCZ অর্থাৎ Inter-Tropical Convergence Zone) বলা হয় ।

সৃষ্টির কারণঃ এই অঞ্চলে নিম্নচাপ সৃষ্টি হওয়ার কারণগুলি হলো নিম্নরূপ –
ক) সূর্যরশ্মির লম্বভাবে কিরণঃ নিরক্ষরেখার উভয়পাশে ৫°-১০° উঃ/দঃ অক্ষাংশের মধ্যে সারা বছর সূর্য লম্বভাবে কিরণ দেয় । ফলে এই অঞ্চলের বায়ু অন্যান্য অঞ্চলের বায়ুর তুলনায় অপেক্ষাকৃত উষ্ণ ও লঘু হয় ।
খ) জলভাগের প্রাধান্যঃ নিরক্ষীয় অঞ্চলে স্থলভাগের তুলনায় জলভাগের প্রাধান্য বেশী । এই জলভাগ থেকে সূর্যের প্রচন্ড তাপে প্রচুর জলীয় বাষ্প উত্থিত হয়ে বায়ুতে মিশে যায় ।
গ) পৃথিবীর আবর্তন গতিঃ নিরক্ষীয় অঞ্চলে পৃথিবীর আবর্তন গতিজনিত ঘূর্ণনের বেগ সর্বাধিক থাকায় এই অঞ্চলের উচ্চস্তরের উষ্ণ ও আর্দ্র হালকা বায়ু উত্তর ও দক্ষিণ উভয়দিকে ছিটকে পড়ে ।
এই তিনটি কারণের সম্মিলিত ফলে নিরক্ষীয় অঞ্চলে নিম্নচাপ সৃষ্টি হয়েছে ।

আন্তঃক্রান্তীয় সম্মিলন অঞ্চল (ITCZ Or, Inter-Tropical Convergence Zone)

আন্তঃক্রান্তীয় সম্মিলন অঞ্চল (ITCZ Or, Inter-Tropical Convergence Zone)

২. কর্কটীয় উচ্চচাপ বলয়৩. মকরীয় উচ্চচাপ বলয়ঃ নিরক্ষরেখার উভয়পাশে ২৫°-৩৫° উঃ/দঃ অক্ষাংশে দুই ক্রান্তীয় অঞ্চলসংশ্লিষ্ট উচ্চচাপ বলয় দুটিকে উত্তর গোলার্ধে কর্কটীয় উচ্চচাপ বলয় ও দক্ষিণ গোলার্ধে মকরীয় উচ্চচাপ বলয় বলে ।

*** কর্কটীয় ও মকরীয় অঞ্চলে বায়ুর গতি সর্বদাই ঊর্দ্ধমুখী ও নিম্নমুখী হয় এবং কখনই ভূ-পৃষ্ঠের সমান্তরালে প্রবাহিত হয় না বলে বায়ুপ্রবাহের অস্তিত্ব প্রায় একপ্রকার বোঝাই যায় না । এই জন্য এই দুই অঞ্চলকে কর্কটীয় শান্ত বলয়মকরীয় শান্ত বলয় বলা হয় ।

সৃষ্টির কারণঃ এই অঞ্চলে উচ্চচাপ সৃষ্টি হওয়ার কারণগুলি হলো নিম্নরূপ –
ক) সূর্যরশ্মির পতনকোণঃ এই অঞ্চলে সূর্য বছরের অধিকাংশ সময়ই তীর্যকভাবে কিরণ দেওয়ার ফলে নিরক্ষীয় অঞ্চলের তুলনায় এখানকার বায়ু শীতল ও ভারী হয় ।
খ) জলীয় বাষ্পের স্বল্পতাঃ নিরক্ষীয় অঞ্চলের তুলনায় এই অঞ্চলে বাষ্পীভবনের হার কম হওয়ায় বায়ুতে জলীয় বাষ্পের পরিমাণ কম হয় । ফলে স্বাভাবিকভাবেই এই অঞ্চলের বায়ু ওপেক্ষাকৃত ভারী হয়ে পড়ে ।
গ) পৃথিবীর আবর্তন গতিঃ নিরক্ষীয় অঞ্চলের উষ্ণ, আর্দ্র ও হালকা বায়ু উপরে উঠে পৃথিবীর আবর্তনের ফলে উত্তর ও দক্ষিণ দিকে প্রবাহিত হয় এবং ক্রমশ তা প্রসারিত, শীতল ও ভারী হয়ে কর্কটীয় অঞ্চলে ও মকরীয় অঞ্চলে নেমে আসে উচ্চচাপ সৃষ্টি করে ।
ঘ) মেরুদ্বয় থেকে আগত শীতল ও ভারী বায়ুঃ মেরুদ্বয় থেকে শীতল ও ভারী উচ্চচাপযুক্ত বায়ু ভূপৃষ্ঠ বরাবর নিরক্ষরেখার দিকে অগ্রসর হয় । কর্কটীয় ও মকরীয় অঞ্চলে এই ভারী বায়ুর প্রভাবে উচ্চচাপ সৃষ্টি হয় ।

৪. সুমেরুবৃত্ত প্রদেশীয় নিম্নচাপ বলয়৫. কুমেরুবৃত্ত প্রদেশীয় নিম্নচাপ বলয়ঃ উভয় গোলার্ধে ৬০°-৭০° উঃ/দঃ অক্ষাংশে দুই মেরুবৃত্ত প্রদেশীয় অঞ্চলসংশ্লিষ্ট নিম্নচাপ বলয়দুটিকে উত্তর গোলার্ধে সুমেরুবৃত্ত প্রদেশীয় নিম্নচাপ বলয় ও দক্ষিণ গোলার্ধে কুমেরুবৃত্ত প্রদেশীয় নিম্নচাপ বলয় বলা হয় ।

সৃষ্টির কারণঃ এই অঞ্চলে নিম্নচাপ সৃষ্টি হওয়ার কারণগুলি হলো নিম্নরূপ –
ক) উত্তাপের আধিক্যঃ মেরু অঞ্চলের তুলনায় এই অঞ্চলে উত্তাপ কিছুটা বেশী হওয়ায় এখানকার বায়ু উষ্ণ ও হালকা হয়ে ঊর্দ্ধগামী হয়ে নিম্নচাপ সৃষ্টি হয় ।
খ) জলীয় বাষ্পের উপস্থিতিঃ এই অঞ্চলে জলীয় বাষ্পের আধিক্য থাকে । ফলে জলীয় বাষ্পপূর্ণবায়ু হালকা হয়ে ঊর্দ্ধগামী হয় ।
গ) পৃথিবীর আবর্তন বেগঃ এই অঞ্চলে পৃথিবীর আবর্তন বেগ মেরু অঞ্চল থেকে কিছুটা বেশী হওয়ার ফলে বাতাস বাইরের দিকে ছিটকে গিয়ে নিম্নচাপের সৃষ্টি হয় ।
ঘ) সমুদ্রস্রোতের প্রভাবঃ এই অঞ্চলে ক্রান্তীয় ও উপক্রান্তীয় অঞ্চল থেকে অনেক উষ্ণ সমুদ্রস্রোতের আগমনের ফলে এখানাকার উষ্ণতা অনেকাংশে বৃদ্ধি পায় । ফলে বায়ু উষ্ণ ও হালকা হয়ে ঊর্দ্ধগামী হয়ে নিম্নচাপ সৃষ্টি হয় ।

৬. সুমেরুদেশীয় উচ্চচাপ বলয়৭. কুমেরুদেশীয় উচ্চচাপ বলয়ঃ উভয় গোলার্ধের গড়ে ৮০° উঃ/দঃ থেকে মেরুবিন্দু পর্যন্ত অবস্থিত উচ্চচাপ বলয়দুটিকে উত্তর গোলার্ধে সুমেরুদেশীয় উচ্চচাপ বলয় ও দক্ষিণ গোলার্ধে কুমেরুদেশীয় উচ্চচাপ বলয় বলে ।

সৃষ্টির কারণঃ এই অঞ্চলে উচ্চচাপ সৃষ্টি হওয়ার কারণগুলি হলো নিম্নরূপ –
ক) সুর্যরশ্মির পতনকোণঃ এই অঞ্চলে সূর্যরশ্মি সারাবছর ধরেই অত্যন্ত তীর্যকভাবে কিরণ দেওয়ার ফলে প্রায় সারাবছরই উষ্ণতা খুবই কম থাকে । এমনকি গ্রীষ্মকালেও উষ্ণতা হিমাঙ্কের নীচে থাকে । যে কারণে এই অঞ্চলের শীতল ভারী অধিক ঘনত্বযুক্ত বায়ু উচ্চচাপ সৃষ্টি করে ।
খ) জলীয় বাষ্পের স্বল্পতাঃ এই অঞ্চলে উষ্ণতার অভাবে বাষ্পীভবন প্রক্রিয়া ব্যহত হয় । ফলে বায়ুতে জলীয় বাষ্পের পরিমাণ কম থাকার কারণে শুষ্ক বায়ু অপেক্ষাকৃত ভারী হয় ।
গ) পৃথিবীর আবর্তন গতির বেগঃ মেরু অঞ্চলে পৃথিবীর আবর্তন বেগ সবথেকে কম থাকার ফলে এখানে বায়ু বিক্ষিপ্ত হয় না । ফলে বায়ুর ঘনত্ব বৃদ্ধি পেয়ে উচ্চচাপ সৃষ্টি হয় ।
ঘ) বায়ুর নিমজ্জনঃ মেরুবৃত্ত প্রদেশীয় অঞ্চলের ঊর্দ্ধগামী বিক্ষিপ্ত বায়ু এই অঞ্চলে শীতল ও ভারী হয়ে নেমে এসে বায়ুর ঘনত্ব বৃদ্ধি করে উচ্চচাপ সৃষ্টি করে ।

7 thoughts on “বায়ুচাপ বলয় (Pressure Belts of Wind):

  1. Pingback: অভিকর্ষ বায়ু (Gravity Wind): – bhoogolok.com

  2. Pingback: অশ্ব অক্ষাংশ (Horse Latitude): – bhoogolok.com

  3. Pingback: ক্রান্তীয় ঘূর্ণবাত (Tropical Cyclone): – bhoogolok.com

  4. Pingback: মেরু বায়ু (Polar Wind): – bhoogolok.com

  5. Pingback: পশ্চিমা বায়ু (The Westerlies): – bhoogolok.com

  6. Pingback: আয়ন বায়ু (Trade Winds): – bhoogolok.com

  7. অষ্টম শ্রেণী তে কী এক্টিভিটি করানো যায়?

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.