নদীমঞ্চ বা নদীসোপান (River Terrace):

☻সংজ্ঞাঃ নদী উপত্যকার দুই তীর ধাপে ধাপে নেমে এসে নদীর দুই পাশে মঞ্চের মত অবস্থান করলে তাকে নদীমঞ্চ বা নদীসোপান (River Terrace) বলে ।

উদাঃ গঙ্গা, তিস্তা, ব্রক্ষ্মপুত্র প্রভৃতি নদ-নদীতে এরূপ নদীমঞ্চ দেখা যায় ।

নদীমঞ্চ বা নদীসোপান (River Terrace)

নদীমঞ্চ বা নদীসোপান (River Terrace)

উৎপত্তিঃ স্থলভাগ এবং সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতার তারতম্যের জন্য নদীর দৈর্ঘ্য বরাবর পার্শ্বচিত্রের সঙ্গে সঙ্গে আড়াআড়িভাবে গঠিত পার্শ্বচিত্রেরও অর্থাৎ নদী উপত্যকারও পরিবর্তন হয় । নদী উপত্যকা সরু থেকে ক্রমশ চওড়া হয়ে প্রবীণত্ব লাভ করে । কিন্তু স্থলভাগ ও সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতার তারতম্যের ফলে নদী পুনর্যৌবন লাভ করে তার প্রবীণ উপত্যকাকে পুনরায় কর্তিত করতে থাকে । ফলে নদীর নতুন উপত্যকা প্রবীণ উপত্যকা অপেক্ষা অধিক গভীর হয় এবং ঐ প্রবীণ উপত্যকা নতুন উপত্যকার দুই তীরে মঞ্চের মত অবস্থান করতে থাকে । সময়ের সাথে সাথে একাধিকবার নদীর পুনর্যৌবনলাভ হলে নদীর দুই তীরে একাধিক ধাপবিশিষ্ট নদীমঞ্চ সৃষ্টি হয় ।

বৈশিষ্ট্যঃ নদীমঞ্চ বা নদীসোপান – এর বৈশিষ্ট্যগুলি হল নিম্নরূপ –
ক) একটি নদী উপত্যকায় একাধিক নদীমঞ্চ দেখা যায় ।
খ) নদীতে নদীমঞ্চের সংখ্যা দেখে বোঝা যায় সেই অঞ্চলটি মোট কতবার উন্নত (Uplift) হয়েছে ।

2 thoughts on “নদীমঞ্চ বা নদীসোপান (River Terrace):

  1. Pingback: নদীর পুনর্যৌবনলাভ (Rejuvenation) ও নিক পয়েন্ট (Knick Point): – bhoogolok.com

  2. Pingback: আদর্শ নদী (Ideal River): – bhoogolok.com

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.