প্রচলিত শক্তি অধিক প্রচলিত কেন এবং এর অসুবিধাগুলো কী ?

প্রচলিত বা চিরাচরিত শক্তি সম্পদের ব্যবহার এত অধিক প্রচলিত কেন এবং এর অসুবিধাগুলো কী কী ?

0
প্রচলিত বা চিরাচরিত শক্তি সম্পদের ব্যবহার এত অধিক প্রচলিত কেন এবং এর অসুবিধাগুলো কী কী ?

আমাদের ওয়েবসাইটে আপনাদের সবাইকে স্বাগত জানাই, আজ আমরা ভূগোলের একটি গুরুত্বপূর্ন প্রশ্ন নিয়ে আলোচনা করবো যে প্রশ্নটি ছাত্রছাত্রীদের কাছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এই প্রশ্নটি তারা অধ্যায়ন করলে খুব সহজেই পরীক্ষায় ভালো নম্বর অর্জন করতে পারবে। প্রচলিত শক্তির ব্যবহার অধিক প্রচলিত কেন এবং এর অসুবিধা এই প্রশ্নটি নিয়ে নিম্নে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো।

সুবিধা:

  1. বিদ্যুৎ উৎপাদনের পরিমাণ: প্রচলিত শক্তি সম্পদ থেকে বেশি পরিমাণে বিদ্যুৎ উৎপাদন করা যায়। 
  2. প্রচলন: এইপ্রকার শক্তি সম্পদ আধুনিক সভ্যতার সবচেয়ে বেশি প্রচলিত ও অত্যন্ত জনপ্রিয়।
  3. বৃহদায়তন ক্ষেত্র ব্যবহার: বৃহদায়তন উৎপাদনশীল শিল্প ও কলকারখানায় এইপ্রকার শক্তি ব্যবহার সুবিধাজনক। রেল পরিষেবা : বৈদ্যুতিক রেল পরিষেবা কেবলমাত্র এইপ্রকার শক্তি সম্পদের মাধ্যমে সম্ভব ।
  4. আমদানি-রপ্তানির সুবিধা: চিরাচরিত শক্তির জোগান কোনো দেশে বা অঞ্চলে কম হলে, তা অন্য দেশ বা অঞ্চল থেকে আমদানি করা যায়।
  5.  সহজ উৎপাদন: এই শক্তির উৎপাদন পদ্ধতি অপেক্ষাকৃত সহজ ও সরল।
  6. পর্যাপ্ত উৎপাদন: প্রচুর বিদ্যুৎ উৎপাদন হয় বলে বিদ্যুতের বিপুল চাহিদা কেবলমাত্র এর মাধ্যমে পূরণ করা সম্ভব হয়।

অসুবিধা:

  1. গচ্ছিত: এই শক্তি উৎপাদনের উৎস কয়লা, খনিজ তেল, আনবিক খনিজ প্রভৃতি ভূত্বকে নির্দিষ্ট পরিমাণে সঞ্চিত বা গচ্ছিত রয়েছে।
  2. ক্ষয়িষ্ণু: জলবিদ্যুৎ ছাড়া অন্যান্য প্রচলিত শক্তির উৎসগুলো বেশি ব্যবহারে ভবিষ্যতে নিঃশেষিত বা শেষ হয়ে যেতে পারে।
  3. অপুনর্ভব: প্রচলিতশক্তির উৎস ব্যবহারে কমে আসলে বা শেষ হয়ে গেলে এগুলো পুনরায় তৈরি করা যায় না ফলে এগুলো অপুনর্ভব ।
  4. অসমৰণ্টন: এই সব উৎসগুলো পৃথিবীর কিছু মুষ্টিমেয় দেশে সঞ্চিত রয়েছে, তা সমপরিমাণে নেই।
  5. অত্যধিক মূল্য: এইসব উৎসগুলোর খনি থেকে উত্তোলন, পরিবহন ও প্রক্রিয়াকরণে মূল্য অনেক বেশি পড়ে।
  6. দূষণ: এগুলো ব্যবহার করলে প্রচুর ধোঁয়া নির্গত হয়ে জল, বায়ু ও মাটিকে ব্যাপক দূষিত করে।
  7. মূলধন: এইসব উৎস থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনে খরচ বেশি, ফলে প্রচুর মূলধনের দরকার হয়।
  8. আন্তর্জাতিক অস্থিরতা: অত্যাধিক চাহিদা, সীমিত জোগান, অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি ও মুষ্টিমেয় কিছু দেশে কেন্দ্রীভবনের কারণে খনিজের ভোগদখলের অধিকার নিয়ে আন্তর্জাতিক দ্বন্দ্ব, এমনকী যুদ্ধের পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়।

উপরোক্ত অংশ থেকে কোনো আক্ষেপ থাকলে অবশ্যই নিচে মন্তব্য করুন এবং প্রশ্নের বিষয়টি ভালো লাগলে আপনার বন্ধুদের কাছেও শেয়ার করুন। প্রশ্নের বিষয়টি নিজের কাছে সংরক্ষিত করে রাখার জন্য বা পরে অধ্যায়ন করার জন্য সরাসরি পিডিএফ (PDF) ফাইল ডাউনলোড করুন ধন্যবাদ।