☻সংজ্ঞাঃ গ্রীষ্মকালে উত্তর ও উত্তর – পশ্চিম ভারতে যে অত্যন্ত উত্তপ্ত বায়ু প্রচন্ডবেগে প্রবাহিত হয়, তাকে লু (Loo) বলে । প্রভাবিত অঞ্চলঃ মূলত: উত্তর ও উত্তর – পশ্চিম ভারতের রাজস্থান, উত্তরপ্রদেশ, হরিয়ানা, পাঞ্জাব, বিহার প্রভৃতি রাজ্য এবং দিল্লীর বিস্তীর্ণ অঞ্চল গ্রীষ্মকালে লু বায়ুর দ্বারা প্রভাবিত হয় । বৈশিষ্ট্যঃ লু – এর বৈশিষ্ট্যগুলি হলো নিম্নরূপ – ক) এটি একপ্রকার উষ্ণ (৪০°C – ৪৮°C) ও শুষ্ক আঞ্চলিক বায়ুপ্রবাহ । খ) আগুনের হল্কার

বিস্তারিত

☻ব্যুৎপত্তিগত অর্থঃ ‘Khamsin’ শব্দটির আঞ্চলিক ভাষাগত অর্থ ‘পঞ্চাশ দিন ধরে প্রবাহিত’ । সংজ্ঞাঃ সাহারা মরুভূমি থেকে উৎপত্তিলাভ করে যে উষ্ণ ও শুষ্ক বায়ু মিশরের দিকে প্রবাহিত হয়, তাকে খামসিন (Khamsin) বলে । প্রভাবিত অঞ্চলঃ সাহারা মরুভূমি থেকে সমগ্র মিশরসহ বিস্তীর্ণ অঞ্চলে খামসিন বায়ু তার প্রভাব বিস্তার করে । বৈশিষ্ট্যঃ খামসিন – এর বৈশিষ্ট্যগুলি হলো নিম্নরূপ – ক) এটি একপ্রকার উষ্ণ ও শুষ্ক আঞ্চলিক বায়ুপ্রবাহ । খ) উৎপত্তিস্থলে এটি ধূলিপূর্ণ হয়,

বিস্তারিত

☻সংজ্ঞাঃ বসন্তকালে দক্ষিণ আমেরিকা মহাদেশের আন্দিজ পর্বতের পাদদেশ থেকে আর্জেন্টিনার পম্পাস তৃণভূমি অঞ্চলের দিকে যে উষ্ণ বায়ু প্রবাহিত হয়, তাকে পম্পেরো (Pampero) বলে । প্রভাবিত অঞ্চলঃ আন্দিজ পর্বতের পূর্ব ঢাল থেকে পম্পাস তৃণভূমি পর্যন্ত বিস্তীর্ণ অঞ্চলে পম্পেরো বায়ু তার প্রভাব বিস্তার করে । বৈশিষ্ট্যঃ পম্পেরো – এর বৈশিষ্ট্যগুলি হলো নিম্নরূপ – ক) এটি একপ্রকার উষ্ণ প্রকৃতির আঞ্চলিক বায়ুপ্রবাহ । খ) এটি একপ্রকার পার্বত্য বায়ু । প্রভাবঃ পম্পেরো – এর প্রভাবগুলি

বিস্তারিত

☻সংজ্ঞাঃ উত্তর – পশ্চিম আফ্রিকায় অবস্থিত সাহারা মরুভূমির পূর্ব ও উত্তর – পূর্ব দিক থেকে গিনি উপকূলের দিকে একপ্রকার শীতল ও শুষ্ক বায়ু প্রবাহিত হয়, একে হারমাট্টান (Hermattan) বলে । প্রভাবিত অঞ্চলঃ সাহারা মরুভূমি থেকে গিনি উপকূল পর্যন্ত বিস্তীর্ণ অঞ্চলে হারমাট্টান বায়ুপ্রবাহ তার প্রভাব বিস্তার করে । বৈশিষ্ট্যঃ হারমাট্টান – এর বৈশিষ্ট্যগুলি হলো নিম্নরূপ – ক) এটি একপ্রকার শুষ্ক ও শীতল প্রকৃতির আঞ্চলিক বায়ুপ্রবাহ । খ) উত্তরায়ণের সময় জুলাই মাসে

বিস্তারিত

☻ব্যুৎপত্তিগত অর্থঃ ‘Mistral’ শব্দটি ফ্রান্সের অক্সিটানের আঞ্চলিক ভাষা থেকে এসেছে, যার অর্থ ‘দক্ষ’ । সংজ্ঞাঃ শীতকালে আল্পস পর্বত থেকে দক্ষিণ ফ্রান্সের রোণ উপত্যকার দিকে একরকমের শীতল ও শুষ্ক বায়ু প্রবল গতিতে প্রবাহিত হয়, যা মিস্ট্রাল (Mistral) নামে পরিচিত । প্রভাবিত অঞ্চলঃ ফ্রান্সের রোণ উপত্যকাসহ ভূমধ্যসাগরের উপকূলবর্তী বিস্তীর্ণ অঞ্চলে মিস্ট্রাল বায়ু তার প্রভাব বিস্তার করে । বৈশিষ্ট্যঃ মিস্ট্রাল – এর বৈশিষ্ট্যগুলি হলো নিম্নরূপ – ক) এটি একপ্রকার শীতল ও শুষ্ক আঞ্চলিক

বিস্তারিত

☻ব্যুৎপত্তিগত অর্থঃ ‘Bora’ একটি গ্রীক শব্দ, যার অর্থ ‘স্বল্পস্থায়ী গ্রীষ্মকালীন বৃষ্টি’ । সংজ্ঞাঃ শীতকালে আল্পস পর্বত থেকে দক্ষিণ ইটালির অ্যাড্রিয়াটিক উপকূলের দিকে একরকমের শীতল ও শুষ্ক বায়ু প্রবাহিত হয়, যা বোরা (Bora) নামে পরিচিত । প্রভাবিত অঞ্চলঃ আল্পস পর্বতের দক্ষিণ ঢাল বরাবর নিম্নগামী হওয়ার পর অ্যাড্রিয়াটিক সাগরের উপকূলবর্তী বিস্তীর্ণ অঞ্চলে বোরা বায়ুপ্রবাহ তার প্রভাব বিস্তার করে । বৈশিষ্ট্যঃ বোরা – র বৈশিষ্ট্যগুলি হলো নিম্নরূপ – ক) এটি একপ্রকার শীতল ও

বিস্তারিত

☻সংজ্ঞাঃ আফ্রিকার উত্তরে অবস্থিত লিবিয়ার সাহারা মরুভূমি থেকে উৎপত্তি লাভ করে যে উষ্ণ ও শুষ্ক বায়ু ভূমধ্যসাগর অতিক্রম করে ইউরোপ মহাদেশের দক্ষিণপ্রান্তে এসে পৌছায়, তাকে সিরোক্কো (Sirocco) বলে । প্রভাবিত অঞ্চলঃ সাহারা মরুভূমি থেকে ভূমধ্যসাগর অতিক্রম করে ইউরোপ মহাদেশের দক্ষিণপ্রান্ত পর্যন্ত বিস্তীর্ণ অঞ্চলে সিরোক্কো বায়ুপ্রবাহ তার প্রভাব বিস্তার করে । বৈশিষ্ট্যঃ সিরোক্কো – এর বৈশিষ্ট্যগুলি হলো নিম্নরূপ – ক) এটি একপ্রকার উষ্ণ ও শুষ্ক প্রকৃতির আঞ্চলিক বায়ুপ্রবাহ । খ) এটি

বিস্তারিত

☻সংজ্ঞাঃ আর্দ্র বায়ু উপকূলীয় পর্বতের প্রতিবাত ঢাল বরাবর উপরে উঠে মেঘ ও বৃষ্টিপাত সৃষ্টি করার পর অনুবাত অঞ্চলে নেমে এসে উষ্ণ ও শুষ্ক বায়ুরূপে প্রবাহিত হয় । রাইন উপত্যকার মধ্য দিয়ে আল্পস পার্বত্য অঞ্চলে প্রবাহিত এরকম উষ্ণ ও শুষ্ক বায়ুপ্রবাহকে ফন (Foehn) বলে । প্রভাবিত অঞ্চলঃ আল্পস পর্বতের উত্তর ঢাল বরাবর নীচের দিকে নেমে এসে রাইন নদী উপত্যকা ও সুইজারল্যান্ডসহ মধ্য ইউরোপের বিস্তীর্ণ সমভূমি অঞ্চলে ফন বায়ুপ্রবাহ তার প্রভাব বিস্তার

বিস্তারিত

☻ব্যুৎপত্তিগত অর্থঃ ‘Chinook’ একটি রেড ইন্ডিয়ান শব্দ, যার অর্থ হল ‘তুষার ভক্ষক’ । সংজ্ঞাঃ আর্দ্র বায়ু উপকূলীয় পর্বতের প্রতিবাত ঢাল বরাবর উপরে উঠে মেঘ ও বৃষ্টিপাত সৃষ্টি করার পর অনুবাত অঞ্চলে নেমে এসে উষ্ণ ও শুষ্ক বায়ুরূপে প্রবাহিত হয় । উত্তর আমেরিকার রকি পর্বতের অনুবাত ঢালে প্রবাহিত এরকম উষ্ণ ও শুষ্ক বায়ুপ্রবাহ চিনুক (Chinook) নামে পরিচিত । প্রভাবিত অঞ্চলঃ কানাডা ও রকি পর্বতের পূর্বঢাল থেকে পাদদেশীয় সমভূমির উপর প্রায় কয়েকশো কিলোমিটার পর্যন্ত

বিস্তারিত

☻অ্যানাবেটিক বায়ু (Anabatic Wind): ব্যুৎপত্তিগত অর্থঃ ‘Anabatic’ – শব্দটি এসেছে গ্রীক শব্দ ‘Anabaino’ থেকে, যার অর্থ হলো ঊর্দ্ধগামী । সংজ্ঞাঃ দিনের বেলা সূর্যকিরণের প্রভাবে পর্বতের মধ্যভাগের তুলনায় উর্দ্ধভাগ ও উপত্যকার তলদেশ অপেক্ষাকৃত বেশী উত্তপ্ত হয়ে পড়ে । যার ফলে সংশ্লিষ্ট বায়ুস্তরও উত্তপ্ত ও হালকা হয়ে পর্বতের গা বেয়ে এবং উপত্যকার উজান বরাবর উপরের দিকে প্রবাহিত হয় । উপত্যকার উজান বরাবর প্রবাহিত ঊর্দ্ধগামী বায়ুকে উপত্যকা বায়ু (Valley Wind) ও পর্বতের ঢাল বরাবর উপরের দিকে

বিস্তারিত