সংজ্ঞাঃ মানুষ যে প্রচেষ্টার দ্বারা জমি চাষ করে ফসল এবং অন্যান্য উদ্ভিজ্জ ও প্রাণীজ দ্রব্য উৎপাদন করে, তাকে কৃষিকার্য (Agriculture) বলে ।

বিস্তারিত

সংজ্ঞাঃ মূলত সরকারী মালিকানাধীন অব্যবহৃত ফাঁকা জমি এবং পতিত জমিতে একক বা যৌথ উদ্যোগে বৃক্ষরোপণ করাকে সামাজিক বনসৃজন (Socialforestry) বলে । উপযুক্ত গাছঃ নিম, শিরিষ, আম, ইউক্যালিপটাস, কৃষ্ণচূড়া, আকাশমণি প্রভৃতি । উদ্দেশ্যঃ সামাজিক বনসৃজন – এর উদ্দেশ্যগুলি হলো নিম্নরূপ – ক) বিভিন্ন বৃক্ষজাত উপকরণ যেমন – পাতা, ফুল, ফল, শুকনো কাঠ, রজন, মধু, মোম প্রভৃতি সংগ্রহের মধ্য দিয়ে সমাজের গরীব, দুঃস্থ মানুষদের কর্মসংস্থান সৃষ্টি করা । খ) পতিত, অনাবাদী জমির

বিস্তারিত

সংজ্ঞাঃ কৃষিজমিতে খাদ্যশস্য উৎপাদনের পাশাপাশি গাছ লাগিয়ে বৃক্ষজাত সম্পদ উৎপাদনের বিজ্ঞানসম্মত আধুনিক পদ্ধতিকে কৃষি বনসৃজন (Agroforestry) বলে । উপযুক্ত গাছঃ আম, পেয়ারা, লিচু, নিম, কালমেঘ, কুল প্রভৃতি । উদ্দেশ্যঃ কৃষি বনসৃজন (Agroforestry) – এর উদ্দেশ্যগুলি হলো নিম্নরূপ- ক) কৃষকের কৃষিজাত উৎপাদন ও মুনাফা বৃদ্ধি করা । খ) কৃষকের একফসলজনিত ঝুঁকি কমানো । গ) কৃষিজমিতে ভূমিক্ষয় হ্রাস করা । ঘ) কৃষিজমিতে জৈবসারের পরিমান বৃদ্ধি করা । ঙ) পশুখাদ্যের জোগান বৃদ্ধি করা

বিস্তারিত

সংজ্ঞাঃ মূল শহর থেকে অনতিদুরে অবস্থিত কৃষি অঞ্চলগুলি থেকে নিত্যপ্রয়োজনীয় উৎপাদিত কৃষি ফসলগুলিকে ট্রাকের মত উন্নত পরিবহন মাধ্যমের সাহায্যে উক্ত শহরাঞ্চলে নিয়ে আসার জন্য যে কৃষিনির্ভর ব্যবস্থা পরিচালিত হয়, তাকে ট্রাক ফার্মিং(Truck Farming) বলা হয় ।

বিস্তারিত

খ্রিস্টীয় ত্রয়োদশ শতক নাগাদ পারস্য দেশ থেকে আসা কাঠের তৈরী ছোট নাগরদোলার মত দেখতে যে যন্ত্রের সাহায্যে প্রাচীন ভারতে জলসেচ করা হত, তাকে পারসিক চক্র বলে । ব্যবহৃত অঞ্চলঃ পারসিক চক্রের ব্যবহার মূলত উত্তর-পশ্চিম ভারতের কিছু অঞ্চলেই সীমাবদ্ধ ছিল । বৈশিষ্ট্যঃ পারসিক চক্র – এর বৈশিষ্ট্যগুলি নিম্নরূপ – ক) এগুলি পশুশক্তির সাহায্যে পরিচালিত হতো । খ) নীচু জলাভূমি, কুয়ো, খাল প্রভৃতি থেকে এগুলির সাহায্যে কৃষিজমিতে জলসেচ করা হতো ।

বিস্তারিত

চা গাছ থেকে চা পাতা পাওয়া যায় । এই চা পাতা বিভিন্ন প্রক্রিয়াকরণের মধ্য দিয়ে অবশেষে পানীয় হিসাবে গ্রহণ করা হয় ‘চা’ হিসাবে । সারা পৃথিবী জুড়েই বিশেষত শীতপ্রধান অঞ্চল ও নাতিশীতোষ্ণ অঞ্চলের দেশগুলোতে পানীয় হিসাবে চা বিশেষভাবে সমাদৃত । এই ব্যাপক আন্তর্জাতিক চাহিদা মেটানোর জন্য ভারতসহ অন্যান্য চা উৎপাদক দেশগুলি (শ্রীলঙ্কা, বাংলাদেশ প্রভৃতি) বিদেশের বাজারে প্রত্যেক বছর প্রচুর পরিমানে চা রপ্তানি করে এবং বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করে । পানীয়

বিস্তারিত