ভূমিকম্পের ছায়া বলয়

সংজ্ঞাঃ ভূমিকম্পের উপকেন্দ্র থেকে ১০৪° থেকে ১৪০° কৌণিক দূরত্বের অঞ্চলে ভূমিকম্পের কোন তরঙ্গই পৌছাতে পারে না, তাই এই অঞ্চলকে ভূমিকম্পের ছায়া বলয় বা ছায়া অঞ্চল (Seismic Shadow Zone) বলে । প্রফেসর উইসার্ট, বেনো গুটেনবার্গ প্রমুখ ভূ-কম্পবিদ ভূমিকম্পের এই ছায়া বলয়ের উপস্থিতি নিয়ে সর্বপ্রথম আলোচনা করেন । তরঙ্গহীনতার কারনঃ আমরা জানি, ভূমিকম্পের গৌণ তরঙ্গ বা S – …

Read More….

মহীভাবক আলোড়ন

সংজ্ঞাঃ যে আলোড়ন ভূপৃষ্ঠে উল্লম্বভাবে ক্রিয়া করে ভূত্বকের উত্থান বা অবনমন ঘটায়, তাকে মহীভাবক আলোড়ন (Epeirogenic Movement) বলে । গ্রীক শব্দ ‘Epeiros’ যার অর্থ মহাদেশ এবং ‘Genesis’ যার অর্থ সৃষ্টি ; এই দুটি গ্রীক শব্দের সমন্বয়ে “Epeirogenic” অর্থাৎ মহীভাবক শব্দটি এসেছে । ব্যাখ্যাঃ মহীভাবক আলোড়ন ভূপৃষ্ঠে উল্লম্বভাবে অর্থাৎ, পৃথিবীর ব্যাসার্ধ বরাবর ভূ-কেন্দ্র থেকে ভূপৃষ্ঠ অভিমুখে …

Read More….

মহীঢাল

সংজ্ঞাঃ মহীসোপানের প্রান্তভাগ থেকে শুরু করে সমুদ্রজলে নিমজ্জিত মোটামুটি ২০০ – ২০০০ মিটার (স্থানবিশেষে ৪৫০০ মিটার) গভীরতা পর্যন্ত খাড়া ঢালু সমুদ্রভাগকে মহীঢাল (Continental Slope) বলে । বৈশিষ্ট্যঃ মহীঢাল – এর বৈশিষ্ট্যগুলি হলো নিম্নরূপ –১. ঢালঃ এটি খাড়া ঢাল বিশিষ্ট । সাধারণত এর গড় ঢাল ৫° এর কাছাকাছি হলেও স্থান বিশেষে এর তারতম্যও হতে পারে; যেমন …

Read More….

মহীসোপান

সংজ্ঞাঃ সমুদ্রজলে নিমজ্জিত মোটামুটি ১০০ মিটার গভীরতা পর্যন্ত মহাদেশীয় প্রান্তভাগকে মহীসোপান (Continental Shelf) বলে । বৈশিষ্ট্যঃ মহীসোপান – এর বৈশিষ্ট্যগুলি হলো নিম্নরূপ –১. ঢালঃ এটি মৃদু ঢাল বিশিষ্ট । সাধারণত এর ঢাল ১° এর কম হলেও স্থান বিশেষে ২°-৩° ও হতে পারে ।২. গভীরতাঃ মহীসোপানের গভীরতা তটরেখা থেকে প্রায় ২০০ মিটার পর্যন্ত; তবে স্থান বিশেষে …

Read More….

সক্রিয়তা অনুসারে আগ্নেয়গিরির শ্রেণীবিভাগ করো ।

সক্রিয়তা অনুসারে আগ্নেয়গিরির শ্রেণীবিভাগ মূলত তিন প্রকার । যথা – ক) সক্রিয় বা জীবন্ত আগ্নেয়গিরি, খ) সুপ্ত আগ্নেয়গিরি ও গ) মৃত আগ্নেয়গিরি । নীচে এগুলি সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো –ক) সক্রিয় বা জীবন্ত আগ্নেয়গিরিঃসংজ্ঞাঃ যে সকল আগ্নেয়গিরিগুলি থেকে প্রায়ই বা একটানা ভূগর্ভস্থ ম্যাগমা লাভারূপে নির্গত হতে থাকে, তাদের সক্রিয় বা জীবন্ত আগ্নেয়গিরি বলে ।উদাহরণঃ …

Read More….

প্রশান্ত মহাসাগরীয় আগ্নেয় মেখলা

সংজ্ঞাঃ ‘মেখলা’ শব্দের অর্থ ‘কোমর বন্ধনী’ । প্রশান্ত মহাসাগরকে বেষ্টন করে পৃথিবীর প্রায় ৭০% আগ্নেয়গিরি কোমর বন্ধনীর আকারে অবস্থান করছে । তাই এই অঞ্চলটি প্রশান্ত মহাসাগরীয় আগ্নেয় মেখলা নামে পরিচিত । বিস্তারঃ এই আগ্নেয় মেখলা বা বলয়টি প্রশান্ত মহাসাগরের পূর্ব উপকূলে দক্ষিণ আমেরিকার দক্ষিণে হর্ন অন্তরীপ থেকে শুরু করে আন্দিজ ও রকি পর্বতমালা হয়ে আলাস্কার …

Read More….

জ্বালামুখ বা ক্রেটার (Crater)

সংজ্ঞা: ভূঅভ্যন্তরস্থ ম্যাগমা একটি নির্গমন পথের মধ্য দিয়ে ভূপৃষ্ঠে নির্গত হয় । এই নির্গমন পথটির ম্যাগমা উৎক্ষেপকারী ফানেলাকৃতি খোলা অংশটিকে জ্বালামুখ বা ক্রেটার (Crater) বলে । উদাহরণ: আলাস্কার অনিয়াচাক আগ্নেয়গিরির জ্বালামুখ পৃথিবীর বৃহত্তম জ্বালামুখ । শ্রেণীবিভাগ: প্রকৃতি অনুসারে জ্বালামুখ মূলত দুই প্রকার । যথা- ১. প্রধান জ্বালামুখ ও২. গৌণ জ্বালামুখ ।এবং গঠন অনুসারে জ্বালামুখ মূলত …

Read More….

কিউমুলোনিম্বাস মেঘ বা ঝড়োপুঞ্জ মেঘ (Cumulonimbus Cloud)

সংজ্ঞাঃ অতি গভীর, ঘন, কালো এবং বিশাল আকারের যে মেঘ থেকে বজ্রপাত ও বিদ্যুৎসহ মুষলধারে বৃষ্টিপাত হয়, তাকে  কিউমুলোনিম্বাস মেঘ বা ঝড়োপুঞ্জ মেঘ (Cumulonimbus Cloud) বলে । পশ্চিমবঙ্গ, অসম, বাংলাদেশে সংঘটিত কালবৈশাখী ঝড় এই প্রকার মেঘ থেকে ঘটে থাকে । বৈশিষ্ট্য: কিউমুলোনিম্বাস মেঘ বা ঝড়োপুঞ্জ মেঘ – এর বৈশিষ্ট্যগুলি নিম্নরূপ –ক) এদের উচ্চতা ভূপৃষ্ঠ থেকে ১/২ …

Read More….

আবহবিকার (Weathering)

‘আবহবিকার’ বা ‘Weathering’ শব্দটি এসেছে আবহাওয়া বা Weather থেকে, যার আক্ষরিক অর্থ আবহাওয়ার দ্বারা ভূপৃষ্ঠের পরিবর্তন । জি.কে. গিলবার্ট সর্বপ্রথম “Weathering” শব্দটি ব্যবহার করেন । সংজ্ঞাঃ আবহাওয়ার বিভিন্ন উপাদান যথা- উষ্ণতা, আর্দ্রতা, বৃষ্টিপাত, তুষারপাত প্রভৃতির প্রভাবে ভূপৃষ্ঠস্থ শিলাসমূহের উপরিভাগ যান্ত্রিকভাবে চূর্ণবিচূর্ণ ও রাসায়নিকভাবে বিয়োজিত হয় । এই প্রক্রিয়া আবহবিকার (Weather ) নামে পরিচিত । ভূবিজ্ঞানী …

Read More….

জলচক্র

সংজ্ঞাঃ ভৌগোলিক অবস্থান ও ভৌত অবস্থার বিভিন্ন পরিবর্তন (কঠিন, তরল ও গ্যাসীয়) ও বিনিময়ের মধ্য দিয়ে চক্রাকারে বারিমন্ডল, বায়ুমন্ডল ও স্থলভাগের জলের সামগ্রিক পরিমাণের সমতা বজায় থাকে । জলের এই চক্রাকার আবর্তনপথকে জলচক্র (Hydrological Cycle) বলে । ব্যাখ্যাঃ জল তিনটি অবস্থায় সাধারণত থাকতে পারে যথা – কঠিন, তরল ও গ্যাসীয় অবস্থায় । এই তিনটি অবস্থায় …

Read More….