অ্যানাবেটিক বায়ু ও ক্যাটাবেটিক বায়ু কি?

অ্যানাবেটিক বায়ু (Anabatic Wind):ব্যুৎপত্তিগত অর্থঃ ‘Anabatic’ – শব্দটি এসেছে গ্রীক শব্দ ‘Anabaino’ থেকে, যার অর্থ হলো ঊর্দ্ধগামী । সংজ্ঞাঃ দিনের বেলা সূর্যকিরণের প্রভাবে পর্বতের মধ্যভাগের তুলনায় উর্দ্ধভাগ ও উপত্যকার তলদেশ অপেক্ষাকৃত বেশী উত্তপ্ত হয়ে পড়ে । যার ফলে সংশ্লিষ্ট বায়ুস্তরও উত্তপ্ত ও হালকা হয়ে পর্বতের গা বেয়ে এবং উপত্যকার উজান বরাবর উপরের দিকে প্রবাহিত হয় । উপত্যকার …

Read More….

মনেক্স (MONEX) কি?

পরিচিতিঃ ভারতীয় উপমহাদেশে মৌসুমী বায়ুর উৎপত্তি, গঠন, কার্যপ্রণালী, গতি প্রভৃতি বিষয়াবলী সংক্রান্ত গবেষণামূলক একটি কর্মসূচী হল মনেক্স (MONEX). MONEX – এর পুরো কথা হল MONSOON EXPERIMENT. এই কর্মসূচীতে ভারত মহাসাগরের উপরে অবস্থানরত ‘GOES INDIAN OCEAN’ নামক একটি কৃত্রিম উপগ্রহ ৬০° পূর্ব দ্রাঘিমায় থেকে সমগ্র ভারত ও সংলগ্ন প্রতিবেশী দেশগুলিতে মৌসুমী বায়ুর কার্যকলাপ রেকর্ড করে এবং …

Read More….

মৌসুমী বায়ু কি?

সংজ্ঞাঃ বায়ুচাপ ও বায়ুর উষ্ণতার পার্থক্যের ফলে বছরের নির্দিষ্ট ঋতুতে নির্দিষ্ট দিক থেকে প্রবাহিত ও নির্দিষ্ট অভিমুখে ধাবিত বায়ুপ্রবাহকে মৌসুমী বায়ু (Monsoon Wind) বলে ।H.J. Critchfield এর ভাষায় “In several parts of the world seasonally prevailling wind known as Monsoon”. মৌসুমী (Monsoon) শব্দটি আরবি শব্দ ‘মৌসিম’ বা মালয়ী শব্দ ‘মনসিন’ থেকে এসেছে, যার অর্থ হল …

Read More….

স্থলবায়ু কি?

সংজ্ঞাঃ মূলতঃ সন্ধ্যাবেলার পর থেকে সারা রাত্রি (বিশেষত ভোরবেলা) স্থলভাগ থেকে সমুদ্রভাগের দিকে প্রবাহিত বায়ুকে স্থলবায়ু (Land Breeze) বলে । উৎপত্তিঃ সমুদ্র তীরবর্তী কোনো স্থানের বায়ুপ্রবাহ সাধারণত জলভাগ ও স্থলভাগের দিন – রাত্রির উষ্ণতার তারতম্যের উপর নির্ভর করে । জলে ও স্থলে দিনের বেলা সূর্যকিরণ সমানভাবে পতিত হলেও প্রকৃতিগত পার্থক্যের জন্য জলভাগ অপেক্ষা স্থলভাগ শীঘ্র …

Read More….

সমুদ্রবায়ু কি?

সংজ্ঞাঃ মূলত দিনের বেলা (বিশেষত অপরাহ্নে) সমুদ্রভাগ থেকে স্থলভাগের দিকে প্রবাহিত বায়ুকে সমুদ্রবায়ু (Sea Breeze) বলে । উৎপত্তিঃ সমুদ্র তীরবর্তী কোনো স্থানের বায়ুপ্রবাহ সাধারণত জলভাগ ও স্থলভাগের দিন – রাত্রির উষ্ণতার তারতম্যের উপর নির্ভর করে । জলে ও স্থলে দিনের বেলা সূর্যকিরণ সমানভাবে পতিত হলেও প্রকৃতিগত পার্থক্যের জন্য জলভাগ অপেক্ষা স্থলভাগ শীঘ্র উত্তপ্ত হয় । …

Read More….

মেরু বায়ু কি?

সংজ্ঞাঃ সুমেরুদেশীয় উচ্চচাপ বলয় থেকে সুমেরুবৃত্ত প্রদেশীয় নিম্নচাপ বলয়ের দিকে ও কুমেরুদেশীয় উচ্চচাপ বলয় থেকে কুমেরুবৃত্ত প্রদেশীয় নিম্নচাপ বলয়ের দিকে সারাবছর একই গতিবেগে একই অভিমুখে প্রবাহিত বায়ুপ্রবাহদ্বয়কে মেরু বায়ু (Polar Wind) বলে । অবস্থানঃ উভয় গোলার্ধে (৭০° – ৮০°) উঃ / দঃ অক্ষাংশের মধ্যে এইপ্রকার বায়ু প্রবাহিত হয় । শ্রেণীবিভাগঃ গতিপথ ও অবস্থান অনুযায়ী মেরু বায়ুপ্রবাহ …

Read More….

পশ্চিমা বায়ু কি?

সংজ্ঞাঃ দুই ক্রান্তীয় অঞ্চলের (কর্কটীয় ও মকরীয়) উচ্চচাপ বলয় থেকে মেরুবৃত্ত প্রদেশীয় নিম্নচাপ বলয়ের দিকে সারাবছর নির্দিষ্ট দিকে ও নির্দিষ্ট গতিতে যে বায়ু প্রবাহিত হয়, তাকে পশ্চিমা বায়ু (The Westerlies) বলে । অবস্থানঃ উভয় গোলার্ধের ৩৫°-৬০° উঃ/দঃ অক্ষাংশের এইপ্রকার বায়ু প্রবাহিত হয় । শ্রেণীবিভাগঃ গতিপথ অনুযায়ী এটি মূলত দুই প্রকার । যথা –a) দক্ষিণ-পশ্চিম পশ্চিমা …

Read More….

আয়ন বায়ু কি?

বুৎপত্তিগত অর্থঃ স্যাকসন শব্দ ‘Treadon’ থেকে ‘Trade’ শব্দটির উৎপত্তি, যার অর্থ কিন্তু ‘বানিজ্য’ নয় । এর অর্থ হল ‘নিয়মিত গতিপথে’ । আয়ন বায়ুর গতিবেগ ও গতিপথ উভয়ই নিয়মিত হওয়ায় প্রাচীনকালে পালতোলা জাহাজের সাহাজ্যে এই আয়ন বায়ুকে কাজে লাগিয়ে উভয় গোলার্ধের ক্রান্তীয় অঞ্চলের দেশগুলিতে সমুদ্রপথে ব্যবসা-বানিজ্য চলত । সেইজন্য এই বায়ু ব্যবসা-বানিজ্যের সহায়ক বলে শব্দার্থের পরিবর্তন …

Read More….

বায়ুপ্রবাহ কি ও কয়প্রকার?

ভূ-পৃষ্ঠের সমান্তরালে বা অনুভূমিকভাবে (উচ্চচাপ অঞ্চল থেকে নিম্নচাপ অঞ্চলের দিকে) বায়ু-চলাচলকে বায়ুপ্রবাহ (Winds) বলে । বায়ুচাপ অঞ্চলদুটির বায়ুচাপের পার্থক্যের মাত্রার উপর বায়ুপ্রবাহের গতিবেগ নির্ভর করে । তাই দেখা যায়, বায়ু কখনও প্রবল বেগে আবার কখনও ধীরে ধীরে প্রবাহিত হয় । বৈশিষ্ট্যঃ বায়ুপ্রবাহ – এর বৈশিষ্ট্যগুলি হলো নিম্নরূপ –ক) চাপের সামঞ্জস্য রক্ষার জন্য বায়ুপ্রবাহ উচ্চচাপ অঞ্চল …

Read More….

বায়ুচাপ বলয় কি?

ভূপৃষ্ঠের উপর নির্দিষ্ট দূরত্ব অন্তর সমধর্মী বায়ুস্তর অনুভূমিকভাবে প্রায় হাজার কিলোমিটার জুড়ে পুরো পৃথিবীকে কয়েকটি বলয়ের আকারে বেষ্টন করে আছে । এগুলি বায়ুচাপ বলয় (Pressure Belts of Wind) নামে পরিচিত ।চাপের তারতম্য অনুসারে ভূ-পৃষ্ঠকে সাতটি নির্দিষ্ট বায়ুচাপ বলয়ে বিভক্ত করা হয়েছে । যথা – ১. নিরক্ষীয় নিম্নচাপ বলয়, ২. কর্কটীয় উচ্চচাপ বলয় ও ৩. মকরীয় …

Read More….