সিন্ধুকর্দম বা সিন্ধুমল কি? এর শ্রেণীবিভাগ কর।

গভীর সমুদ্রের সমভূমি এবং সমুদ্রখাতের সঞ্চয়কে সমুদ্রের গভীরতম অংশের সঞ্চয় বলা হয় । এখানকার অজৈব সঞ্চয়ের মধ্যে নিমজ্জিত আগ্নেয়গিরি থেকে নির্গত দ্রব্যসমূহ প্রধান । আগ্নেয়গিরি নির্গত সূক্ষ্ম উপাদান থেকে লােহিত কর্দম বা লাল কাদার সৃষ্টি হয় বলে এখানে প্রধানত লাল কাদাই দেখা যায় । জৈব উপাদান সমুদ্রের গভীরতম অংশের অপর একটি প্রধান সঞ্চয়জাত পদার্থ । …

Read More….

সামুদ্রিক পাহাড় ও গায়ট কি?

সংজ্ঞাঃ শঙ্কু আকৃতিবিশিষ্ট আগ্নেয় পাহাড় যেগুলি জলের নিচে অবস্থান করে তাকে সামুদ্রিক পাহাড় বা Seamounts বলে । এগুলি মৃত আগ্নেয়গিরির অংশ । সিমাউন্ট শঙ্কু আকৃতিবিশিষ্ট না হয়ে চ্যাপ্টা হলে তাকে গায়ট বলে । শঙ্কু আকৃতির আগ্নেয় দ্বীপ সমুদ্রতরঙ্গের আঘাতে ক্ষয় হয়ে জলতলের নিচে অবস্থান করে গায়টে পরিণত হয় । সামুদ্রিক পাহাড় ও গায়ট আসলে ডুবাে …

Read More….

গভীর সমুদ্রখাত কি?

সংজ্ঞাঃ গভীর সমুদ্রের সমভূমি অঞ্চলের স্থানে স্থানে গভীর খাত দেখতে পাওয়া যায়, যা গভীর সমুদ্রখাত নামে পরিচিত । এই গভীর সমুদ্রখাতগুলি সমুদ্রতলের প্রান্তভাগে অত্যন্ত গভীর , সংকীর্ণ ও দীর্ঘ অবস্থায় লক্ষ করা যায় । উৎপত্তিঃ পাতসংস্থান মতবাদ অনুযায়ী একটি মহাদেশীয় পাত এবং একটি সামুদ্রিক পাতের মুখােমুখি সংঘর্ষের ফলে সামুদ্রিক পাতগুলি মহাদেশীয় পাতের নিচে নিমজ্জিত হয় …

Read More….

গভীর সমুদ্রের সমভূমি কি?

সংজ্ঞাঃ মহীঢাল গভীর সমুদ্রের যেখানে এসে মিলিত হয়েছে , সেই অঞ্চলকে গভীর সমুদ্রের সমভূমি বলা হয় । এই অঞ্চলকে প্রকৃতপক্ষে ‘ সময় ভূমি ’ বলা চলে । ফলে কিছু কিছু অংশ বেশি উচু নিচু ও তরঙ্গায়িত । এই গভীর সমুদ্রের সমভূমিতে স্থানে স্থানে নিমজ্জিত শৈলশিরা লক্ষ করা যায় । দুটি সামুদ্রিক পাতের সংযােগস্থলে গুরুমণ্ডলের ম্যাগমা …

Read More….

সামুদ্রিক শৈলশিরা কি?

সংজ্ঞাঃ মহাসাগরগুলাের তলদেশে অসংখ্য নিমজ্জিত আগ্নেয়গিরি অবস্থান করছে । ভূ – গর্ভস্থিত ম্যাগমা মহাসাগরগুলাের তলদেশের ফাটল দিয়ে অগ্ন্যুৎপাতের মাধ্যমে বেরিয়ে এসে সমুদ্রের তলদেশে সারি সারি দীর্ঘ ও উচ্চ আকৃতির ভূমিরূপ সৃষ্টি করে । এদের সামুদ্রিক শৈলশিরা ( Ridge ) বলে । প্রতিটি মহাসাগরে এই শৈলশিরাগুলি জলমগ্ন অবস্থায় থাকে বলে এদের নিমগ্ন শৈলশিরা ( Submarine Ridges …

Read More….

সমুদ্রকে রত্নাকর বলা হয় কেন ?

‘ রত্নাকর ’ শব্দের অর্থ হল ‘ রত্নের আকর ’ অর্থাৎ বিভিন্ন প্রকার রত্নের ভাণ্ডার । সমুদ্রের তলদেশে – মহীসােপান , মহীঢাল , গভীর সমুদ্রের সমভূমিতে বিপুল পরিমাণ মূল্যবান খনিজ সম্পদ সঞ্চিত রয়েছে । সমুদ্রের তলদেশে পাললিক শিলাস্তর সঞ্চিত হওয়ার সময় ফোরামিনিফেরা নামক একপ্রকার অতি ক্ষুদ্র সামুদ্রিক প্রাণীর দেহাবশেষ ও অন্যান্য সামুদ্রিক প্রাণীও শিলাস্তরে চাপা পড়ে …

Read More….

হিমপ্রাচীর

সংজ্ঞাঃ উত্তর আটলান্টিক মহাসাগরের উত্তর দিক থেকে আগত সবুজ রঙের লাব্রাডর স্রোত ও দক্ষিন দিক থেকে আগত নীল রঙের উষ্ণ উপসাগরীয় স্রোত যে সীমারেখায় পরস্পরের সাথে মিলিত হয়, তাকে হিমপ্রাচীর বলে । অবস্থানঃ উত্তর আমেরিকার উত্তর পূর্ব দিকে অবস্থিত নিউফাউন্ডল্যান্ড উপকূল বরাবর হিমপ্রাচীর অবস্থিত । বৈশিষ্ট্যঃ হিমপ্রাচীর-এর বৈশিষ্ট্যগুলি হলো নিম্নরূপ –১. এটি হলো উষ্ণ স্রোত …

Read More….

ভরা কোটাল বা তেজ কোটাল

সংজ্ঞাঃ অমাবস্যা ও পূর্ণিমার দিনে চাঁদ ও সূর্য এবং পৃথিবী একই সরলরেখায় অবস্থান করে । একে সিজিগি (Syzygy) অবস্থান বলে । এই অবস্থানে ত্রিমুখী প্রভাবে জোয়ারের জল অনেক বেশি ফুলে ওঠে । একে ভরা কোটাল বা তেজ কটাল বলে । তামিল শব্দ ‘কটাল’ এর অর্থ ‘সমুদ্র’ । উৎপত্তিঃ চাঁদ পৃথিবীকে একবার পরিক্রমণ করতে যে সময় …

Read More….

শৈবাল সাগর

সংজ্ঞাঃ সমুদ্র মধ্যবর্তী কয়েক হাজার কিলোমিটার অঞ্চল জুড়ে জলাবর্ত সৃষ্টি হলে তার মধ্যাংশ স্রোতবিহীন ও শান্ত হয় । ফলে এই অঞ্চলে বিভিন্ন প্রকার আগাছা, শৈবাল ও জলজ উদ্ভিদ জন্মায় । সমুদ্র মধ্যবর্তী এই প্রকার শান্ত, স্রোতবিহীন ও আগাছাপূর্ণ অঞ্চলকে শৈবাল সাগর (Sargasso Sea) বলে । পর্তুগিজ শব্দ সারগাসাম (Sargassum) থেকে সারগাসো (Sargasso) শব্দটি এসেছে, যার অর্থ হলো ‘সামুদ্রিক আগাছা’ । উদাহরণঃ পৃথিবীর সমুদ্রভাগে …

Read More….

মহীঢাল

সংজ্ঞাঃ মহীসোপানের প্রান্তভাগ থেকে শুরু করে সমুদ্রজলে নিমজ্জিত মোটামুটি ২০০ – ২০০০ মিটার (স্থানবিশেষে ৪৫০০ মিটার) গভীরতা পর্যন্ত খাড়া ঢালু সমুদ্রভাগকে মহীঢাল (Continental Slope) বলে । বৈশিষ্ট্যঃ মহীঢাল – এর বৈশিষ্ট্যগুলি হলো নিম্নরূপ –১. ঢালঃ এটি খাড়া ঢাল বিশিষ্ট । সাধারণত এর গড় ঢাল ৫° এর কাছাকাছি হলেও স্থান বিশেষে এর তারতম্যও হতে পারে; যেমন …

Read More….