ভারতের উপদ্বীপীয় উচ্চভূমি অঞ্চল সম্পর্কে লেখ।

ভারতের বিশাল সমভূমি অঞ্চলের দক্ষিণে উপদ্বীপীয় উচ্চভূমি অঞ্চল অবস্থিত । কচ্ছ থেকে আরাবল্লী পর্বতের পশ্চিম সীমা দিয়ে দিল্লী এবং তার পর যমুনা ও গঙ্গার সমান্তরালে রাজমহল পাহাড় পর্যন্ত যে রেখা টানা যায় , তার দক্ষিণে ভারতের শেষ সীমা কন্যাকুমারিকা অন্তরীপ পর্যন্ত ত্রিভুজাকার অঞ্চলকে উপদ্বীপীয় উচ্চভূমি অঞ্চল বলে । এই অঞ্চলের উভয়পার্শ্বে উপকূলবর্তী নিম্নভূমি এবং মধ্যভাগে …

Read More….

ধান্দ কি?

সংজ্ঞাঃ ভারতের রাজস্থানের থর মরুভূমির লবণাক্ত হ্রদগুলিকে স্থানীয় ভাষায় ধান্দ (Dhand) বলে । উদাহরণঃ সম্বর এখানকার বৃহত্তম ধান্দ । এছাড়াও কুমান , সারগােল , দিদওয়ানা , পাচপদ্র প্রভৃতি থর মরুভূমির উল্লেখযােগ্য ধান্দ । উৎপত্তিঃ এই অঞ্চলের কেন্দ্রমুখী জলনির্গম প্রণালীর কারণে এই প্রকার হ্রদ সৃষ্টি হয় । বৃষ্টির সামান্য জল নদী দ্বারা বাহিত হয়ে সমুদ্রে পৌছাতে …

Read More….

ধ্রিয়ান কি?

সংজ্ঞাঃ রাজস্থানের থর মরু অঞলের চলমান বালিয়াড়িগুলিকে ধ্রিয়ান (Dhrian) বলে । স্থানীয় অধিবাসীরা এগুলিকে ‘ টিব্বা ’ বলে । উৎপত্তিঃ থর মরুভূমির পশ্চিমাংশের উদ্ভিদশূন্য মরুস্থলীতে বায়ু প্রবলবেগে প্রবাহিত হয় । এই প্রবল বায়ুপ্রবাহের ফলে বালিয়াড়ির প্রতিবাত পার্শ্বের বালি উড়ে গিয়ে অনুবাত পার্শ্বে জমা হতে থাকে । এইভাবে বালিয়াড়ি বায়ুপ্রবাহের দিকে অগ্রসর হতে থাকে এবং ধ্রিয়ানের …

Read More….

তরাই কি?

সংজ্ঞাঃ শিবালিক হিমালয়ের পাদদেশে পূর্ব হিমালয়ের পার্বত্যভূমি থেকে বয়ে আসা মহানন্দা, তিস্তা, জলঢাকা, তোর্সা, রায়ডাক, বালাসন প্রভৃতি নদীবাহিত পলি, বালি ও মূলত নুড়িপাথর সঞ্চিত হয়ে সংকীর্ণ নিম্নভূমিতে এক ঘন অরণ্যাবৃত সাতসেঁতে অঞ্চল সৃষ্টি হয়েছে । এটি তরাই নামে পরিচিত । ‘ তরাই ‘ শব্দের অর্থ হল সাতসেঁতে ভূমি । অবস্থানঃ শিবালিক পর্বতাঞ্চলের নিম্নদেশ বরাবর এটি …

Read More….

মরুস্থলী কি?

সংজ্ঞাঃ অত্যাধিক উষ্ণতা ও অতি সামান্য বৃষ্টিপাতের কারণে রাজস্থানের পশ্চিমাংশে এক রুক্ষ, জলশূন্য, উদ্ভিদহীন এক নিষ্প্রাণ ধু-ধু বালুকাময় প্রান্তরের সৃষ্টি হয়েছে । এটি মরুস্থলী নামে পরিচিত । মরুস্থলী শব্দটির আভিধানিক অর্থ হল ‘মৃতের দেশ’ । অবস্থানঃ এই অঞ্চলটি ভারতের রাজস্থান মরুভূমি অঞ্চলের পাঞ্জাবের দক্ষিণে ও আরাবল্লী পর্বতের পশ্চিম অংশ জুড়ে অবস্থিত । উৎপত্তিঃ এই শুষ্ক …

Read More….

তাল কি?

সংজ্ঞাঃ দুন উপত্যকার উত্তরে আছে হিমাচল পর্বতশ্রেণীর নাগটিব্বা ও মুসৌরী পর্বত । এই পর্বতদুটির পূর্বদিকে অনেকগুলি হ্রদ দেখতে পাওয়া যায় । এদের তাল বলে । এই অঞ্চলে “তাল” বলতে হ্রদকে বোঝায় । উদাহরণঃ নৈনিতাল, ভীমতাল, নাউকুচিয়াতাল, সাততাল, পুনতাল, বাসুকিতাল প্রভৃতি এই অঞ্চলের উল্লেখযোগ্য তাল । বৈশিষ্ট্যঃ এর বৈশিষ্ট্যগুলি নিম্নরূপ –১. হিমালয় পর্বতমালার পর্যায়ক্রমিক উত্থান-নিমজ্জনের ফলে …

Read More….

কারেওয়া কি?

সংজ্ঞাঃ কাশ্মীর উপত্যকায় হ্রদের চারপাশে যে পলিমাটির স্তর সৃষ্টি হয়েছে তাকে স্থানীয় ভাষায় কারেওয়া ( Karewa ) বলে । উৎপত্তিঃ কাশ্মীর উপত্যকা উত্তরে প্রধান হিমালয় পর্বতশ্রেণী এবং দক্ষিণে পিরপঞ্জলের মধ্য দিয়ে অগ্রসর হয়েছে । এটি একটি প্রায় সমতল ডিম্বাকৃতি পৃষ্ঠদেশ সমন্বিত উপত্যকা । উপত্যকার চারদিকে হ্রদ – সঞ্চিত পদার্থসমূহ বা কারেওয়া ( KAREWAS )  ধাপে …

Read More….

মানুষের ক্রিয়াকলাপের উপর উত্তর ভারতের সমভূমির প্রভাব লেখ।

ভারতের উত্তরে হিমালয়ের পার্বত্য অঞ্চল এবং দক্ষিণে দক্ষিণপথ মালভূমির অন্তর্গত মধ্য – ভারতের উচ্চভূমির মধ্যবর্তী অঞ্চল ‘ উত্তর – ভারতের বিশাল সমভূমি ’ নামে পরিচিত । মানুষের ক্রিয়াকলাপের উপর উত্তর ভারতের সমভূমির প্রভাব গুলি নিম্নরূপ –১. কৃষির প্রসারঃ এই সমভূমি পলিমাটি দ্বারা গঠিত বলে যথেষ্ট উর্বর এবং কৃষিকাৰ্যই অধিবাসীদের প্রধান উপজীবিকা । এই সমভূমির বিভিন্ন …

Read More….

উত্তর ভারতের বিশাল সমভূমি সম্পর্কে লেখ।

অবস্থান ও আয়তনঃ ভারতের উত্তরে হিমালয়ের পার্বত্য অঞ্চল এবং দক্ষিণে দক্ষিণপথ মালভূমির অন্তর্গত মধ্য – ভারতের উচ্চভূমির মধ্যবর্তী অঞ্চল ‘ উত্তর – ভারতের বিশাল সমভূমি ’ নামে পরিচিত । এই সমভূমি পূর্ব – পশ্চিমে প্রায় ২,৫০০ কিলােমিটার দীর্ঘ এবং উত্তর – দক্ষিণে প্রায় ২৪ ০-৩২০ কিলােমিটার প্রশস্ত । সমগ্র সমভূমির আয়তন প্রায় ৬,৫২,০০০ বর্গ কিলােমিটার …

Read More….

দুন কি?

সংজ্ঞাঃ শিবালিক পাহাড় শিখরদেশ থেকে উত্তরে ক্রমশঃ নেমে গিয়ে চওড়া উপত্যকায় মিশেছে । শিবালিক হিমালয় ও হিমাচল হিমালয়ের মধ্যবর্তী স্থানে সৃষ্ট নিম্ন উপত্যকা দুন ( Doon ) নামে পরিচিত । উদাহরণঃ উত্তরাখণ্ডের দেরাদুন ৭৫ কিমি দীর্ঘ এবং ২০ কিমি প্রশস্ত । এটি হল হিমালয়ের বৃহত্তম দুন উপত্যকা । এছাড়া অন্যান্য দুন উপত্যকাগুলি হল পাটিয়া , …

Read More….