বৃষ্টির জল সংরক্ষণে তামিলনাড়ুর অগ্রণী ভূমিকা লেখ।

বৃষ্টির জল সংরক্ষণে তামিলনাড়ু ভারতের অন্যান্য রাজ্যগুলির মধ্যে অন্যতম । কিছু বছর আগে অবধিও তামিলনাড়ু রাজ্যে গ্রীষ্মকালে পানীয় জলের সংকট দেখা দিত । জনসাধারণের জলের মোট চাহিদা পূরণের লক্ষ্যে জল উত্তোলনের ফলে ভৌমজলস্তর ভীষণভাবে হ্রাস পেত । পাশাপাশি প্রয়োজনীয় জলেরও সঠিক যোগান হত না । এই পরিস্থিতিতে তামিলনাড়ু সরকার বৃষ্টির জল সংরক্ষণের উপরে জোর প্রদান করে । নিচে বৃষ্টির জল সংরক্ষণে তামিলনাড়ুর অগ্রণী ভূমিকা সম্পর্কে আলোচনা করা হল –

উদ্দেশ্যঃ ২০০১ সালে তৎকালীন তামিলনাড়ু সরকার বৃষ্টির জল সংরক্ষণের ওপর বিশেষ গুরুত্ব আরােপ করে । এর দুটি প্রধান উদ্দেশ্য ছিল । যথা –
১. মহীশূর থেকে কাবেরী নদীর যে পরিমাণ জল অ্যাকুইডাক্ট ( Aqueduct ) – এর মাধ্যমে তামিলনাড়ুতে রপ্তানি হত তা রাজ্যের পক্ষে অপর্যাপ্ত ছিল , তাই পর্যাপ্ত জল সরবরাহ করা ।
২. তামিলনাড়ুতে ভৌমজলস্তর আশঙ্কাজনকভাবে হ্রাস পাওয়ার হাত থেকে রক্ষা করা ।

গৃহীত ব্যবস্থাসমূহঃ সরকার বৃষ্টির জল সংরক্ষণে নানাবিধ ব্যবস্থা নিয়েছে । সরকার বৃষ্টির জল সংরক্ষণে নানাবিধ ব্যবস্থা নিয়েছে । এর মধ্যে –
১. বিশেষ আইন প্রণয়নের মাধ্যমে প্রত্যেক গ্রামীণ এবং শহরাঞ্চলের বাড়িতে বৃষ্টির জল সংরক্ষণ বাধ্যতামূলক ঘােষণা করে এবং এই প্রকল্প প্রাথমিকভাবে দু – বছরের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে শুরু করা হয় । 
২. বিভিন্ন সরকারি এবং বেসরকারি সংগঠনের সাহায্যে জল সংরক্ষণের প্রচার শুরু হয় ।
৩. বৃষ্টির জল সংরক্ষণের জন্য নানা হাের্ডিং , ব্যানার , ফেস্টুন , ফ্লেক্সের সাহায্যে প্রচার চালানো শুরু হয় ।
৪. সরকারীভাবে বাড়ি বাড়ি ঘুরে প্রচার চালানো হয় । 
৫. বৃষ্টির জল সংরক্ষণে সরকারী সহায়তা দেওয়া শুরু হয় ।

ফলাফলঃ ২০০৬ সালের সমীক্ষায় দেখা যায় যে , এর ফলে ভৌমজলস্তরের পরিমাণ প্রায় ৮৬,৭০০ কোটি ঘনফুট বৃদ্ধি পায় । এই অভাবনীয় সাফল্যে উৎসাহিত হয়ে বিশেষ আইন প্রণয়নের মাধ্যমে নতুন করে প্রত্যেক বাড়ির ছাদ এবং নিকাশি ব্যবস্থাকে বৃষ্টির জল ধরে রাখার উপযুক্ত করে তােলার লক্ষ্যমাত্রা নেওয়া হয় । একই সঙ্গে গােটা দেশে বৃষ্টির জল সংরক্ষণের ক্ষেত্রে তামিলনাড়ুকে “রোল – মডেল” ( Role – Model ) হিসেবে তুলে ধরা হয় । জলাভাব কাটিয়ে ওঠার লক্ষে সাধারণ মানুষের আন্তরিক যােগদানের ফলে ২০০৩ সালের মধ্যে দেখা যায় যে , তামিলনাড়ুর প্রায় ৪২ % শহরাঞ্চলের বাড়ি এবং ৩৬ % গ্রামীণ বাড়ি বৃষ্টির জল সংরক্ষণের উপযােগী হয়ে উঠেছে ।
পরবর্তীকালে রাজস্থানের থর এবং জয়পুর জেলাতে তামিলনাড়ুকে অনুসরণ করে অনুরূপ প্রকল্পের সরকারি সূচনা হয় । যেহেতু কলকাতা শহর সংলগ্ন ভৌমজলস্তরও এখন আশঙ্কাজনকভাবে হ্রাস পাচ্ছে এবং আর্সেনিক , অ্যান্টিমনিসহ নানা বিষাক্ত উপাদান জলের সঙ্গে মিশছে সেজন্য ২০১৩ সালে বর্তমান সরকার তামিলনাড়ুর অনুকরণে ‘ জল ধরাে , জল ভরাে ’ প্রকল্পের সূচনা করেছে ।