ভারতের জনজীবনে হ্রদ ও জলাশয়ের গুরুত্ব লেখ।

সারা ভারত জুড়েই অসংখ্য হ্রদ ও জলাশয় ছড়িয়ে ছিটিয়ে অবস্থান করছে । ভারতের অভ্যন্তরীণ জলের চাহিদা মেটানোর দিক দিয়ে এগুলি উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখে । নিচে ভারতের জনজীবনে হ্রদ ও জলাশয়ের গুরুত্ব সম্পর্কে আলোচনা করা হল –
১. কৃষিকার্যে ব্যবহারঃ বৃষ্টিপাত অপর্যাপ্ত এরকম বহু অঞ্চলে হ্রদ ও জলাশয়ের জল কৃষিকাজে ব্যবহার করা হয় । জলাশয়ের মাধ্যমে ভারতের প্রায় ৪.৬ % জমিতে জলসেচ করা হয় ।

২. গৃহস্থালিতে ব্যবহারঃ গৃহস্থালি প্রয়োজনেও ভারতে জলসম্পদের এক বিরাট অংশ ব্যয়িত হয় । বহু স্থানে হ্রদ ও জলাশয়ের জল গৃহস্থালির নানা কাজে ব্যবহৃত হয় ।

৩. মৎস উৎপাদনঃ হ্রদ বা জলাশয়গুলিতে মাছ চাষ করে বা মাছ সংগ্রহ করে ভারতের অভ্যন্তরীণ মৎসের চাহিদার এক বিরাট অংশ যেমন মেটানো হয় , তেমনই বহু মানুষ এই পেশায় নিযুক্ত হয়ে জীবিকা নির্বাহ করেন ।

৪. বন্যা নিয়ন্ত্রণঃ বহুমুখী নদী পরিকল্পনার মাধ্যমে তৈরি জলাশয়গুলি তীব্র বর্ষার সময় জলের ভান্ডার হিসাবে কাজ করে , যার ফলে সংশ্লিষ্ট অঞ্চলে বন্যা নিয়ন্ত্রণ সম্ভবপর হয় ।

৫. পর্যটন শিল্পের বিকাশঃ ভারতের বহু হ্রদ ও জলাশয়কে কেন্দ্র করে পর্যটন শিল্পের বিকাশ ঘটেছে । যেমন— কাশ্মীরের ডাল হ্রদ , উত্তরাখণ্ডের নৈনিতাল , মণিপুরের লােকটাক হ্রদ , পশ্চিমবঙ্গের সাঁতরাগাছির ঝিল প্রভৃতি ।

৬. জলনিকাশে সহায়তাঃ পরিকল্পনাবিহীন পৌরবসতিগুলির পার্শ্ববর্তী হ্রদ ও জলাশয়গুলি উক্ত অঞ্চলের জলনিকাশে সহায়তা করে ।

৭. বাস্তুতান্ত্রিক ভারসাম্য রক্ষাঃ হ্রদ ও জলাশয়গুলি বাস্তুতন্ত্রের আধার । লুপ্তপ্রায় বিভিন্ন প্রাণী – উদ্ভিদ এই বাস্তুতান্ত্রিক পরিবেশে লালিত পালিত হয় । প্রত্যেক বছর শীতের শুরুতে বহুদূর থেকে বিভিন্ন পরিযায়ী পাখি ভারতের অসংখ্য হ্রদ ও জলাশয়ে আসে ।