ভারতে জলসেচের পদ্ধতিগুলি লেখ।

ভারতে জলসেচের পদ্ধতিগুলি মূলত তিন প্রকার । যথা – ১. খাল , ২. কূপ ও নলকূপ এবং ৩. জলাশয় । এদের মধ্যে খাল মাধ্যমে শতকরা প্রায় ৪১ ভাগ , কূপ দ্বারা শতকরা প্রায় ৩২ ভাগ , জলাশয় দ্বারা শতকরা প্রায় ১৭ ভাগ এবং অন্যান্য উপায়ে শতকরা প্রায় ১০ ভাগ জমিতে জলসেচ করা হয় । জলসেচের এই বিভিন্ন পদ্ধতি ভারতের বিভিন্ন অঞ্চলের ভূপ্রকৃতি , ভূগঠন , ভূগর্ভস্থ জল ও তার গুণাগুণের উপর নির্ভর করে গড়ে উঠেছে । ভারতের বিভিন্ন অংশে খালের সাহায্যে জলসেচ হলেও উত্তর ভারতের সমভূমি অঞ্চলেই তা প্রাধান্য লাভ করেছে । কূপের দ্বারা জলসেচ প্রধানত উত্তর ভারতে এবং জলাশয়ের সাহায্যে জলসেচ প্রধানত দক্ষিণ ভারতে অধিক গড়ে উঠেছে । উত্তর ভারতের নরম পলল মৃত্তিকা স্তরে কূপ খনন করা যেরূপ সহজসাধ্য , দক্ষিণ ভারতের কঠিন শিলাস্তরে কূপ খনন তেমনি কষ্টসাধ্য ও ব্যয়সাপেক্ষ । অপরদিকে , দাক্ষিণাত্যের ভূপ্রকৃতিতে বহু অবনমিত অঞ্চল দেখা যায় , যেখানে বাঁধ দিয়ে জল আটকে রেখে জলাশয় সৃষ্টি করা খুবই সহজ ব্যাপার । নিচে ভারতে জলসেচের বিভিন্ন পদ্ধতিগুলি সম্পর্কে আলোচনা করা হল –
১. খালের সাহায্যে জলসেচঃ ভারতে বর্তমানে অধিকাংশ জমিতে খালদ্বারা জলসেচ হয়ে থাকে । খাল দুই প্রকারের , যথা –
( ক ) প্লাবন খালঃ নদীর পার্শ্ব থেকে নির্দিষ্ট উচ্চতায় যে দীর্ঘ খাল কেটে বর্ষাকালে বন্যার অতিরিক্ত জল দূরবর্তী কৃষিক্ষেত্রে নিয়ে যাওয়া হয় , তাকে প্লাবন খাল বলে । এইসকল খালে কেবল বর্ষাকালেই জল থাকে । অন্য সময় নদীর জল কমে গেলে কিংবা কোন বৎসর অনাবৃষ্টি হলে খালে জল প্রবাহিত হয় না । ফলে সেচকার্য বন্ধ হয়ে যায় । এই কারণে বর্তমানে প্রায় সব প্লাবন খালকেই স্থায়ী খালে পরিণত করা হচ্ছে ।
( খ ) স্থায়ী খাল বা নিত্যবহ খালঃ নদী যেখানে পাহাড় বা মালভূমি থেকে সমভূমিতে মিলিত হয়েছে , সেখানে নদীর এক তীর থেকে অপর তীর পর্যন্ত সুদৃঢ় বাঁধ ( Barrage Or, Dam ) নির্মাণ করে তার পশ্চাতে জলাধার সৃষ্টি করা হয় । এই জলাধার থেকে যে খাল মাধ্যমে সারা বৎসর যান্ত্রিক উপায়ে প্রয়ােজনমত জল ছেড়ে সেচকার্য চালান হয় , তাদের স্থায়ী খাল বা নিত্যবহ খাল বলে । প্রধান খাল থেকে আবার শাখাখাল মাধ্যমে চতুর্দিকে জল নিয়ে যাওয়া হয় । এই ধরনের খালে সারা বৎসর জল থাকে । স্বাধীনতালাভের পর ভারতে বিভিন্ন বহুমুখী নদী উপত্যকা পরিকল্পনা রূপায়ণের ফলে এই ধরনের সেচখালের ব্যবহার অনেক বেড়ে গেছে ।
বন্টনঃ ভারতে প্রায় ১৬ মিলিয়ন হেক্টর জমিতে খালের মাধ্যমে জলসেচ করা হয় । উত্তর ভারতের ( প্রায় ৬০% ) উত্তরপ্রদেশ , হরিয়ানা , পাঞ্জাব , রাজস্থান , বিহার এবং দক্ষিণ ভারতের ( প্রায় ৪০% ) অন্ধ্রপ্রদেশ , কর্ণাটক , তামিলনাড়ু , মহারাষ্ট্র , মধ্যপ্রদেশ , ছত্তিশগড় রাজ্যে খালের মাধ্যমে জলসেচ করা হয় ।

২. কুপ ও নলকূপের সাহায্যে জলসেচঃ কূপের সাহায্যে জলসেচ বহু প্রাচীন কাল থেকেই চলে আসছে । খাল বা জলাশয় দ্বারা ভূপৃষ্ঠের জল ব্যবহার করা হয় । কিন্তু কূপ বা নলকূপ মাধ্যমে ভূগর্ভস্থ জলকে সেচকার্যে ব্যবহার করা হয় । যে সকল অঞ্চলে খাল পৌছতে পারে না , সেই সকল স্থানে কূপ বা নলকূপ মাধ্যমে ভূগর্ভের জলকে সহজেই কাজে লাগান যায় । কূপ সাধারণত স্থায়ী বা পাকা এবং অস্থায়ী বা কাঁচা – এই দুই ধরনের হয় । কুপ থেকে জল তােলা এক বিশেষ সমস্যা । এর জন্য বলদ , উট প্রভৃতি পশুর সাহায্য নেওয়া হয় । পারসিক চাকার ( Persian wheel ) সাহায্যে বহু কূপ থেকে জল তােলা হয় । এতে একটি চাকার গায়ে অনেকগুলি ছােট ছােট বাতির মত পাত্র লাগান থাকে । কোনও পশুর সাহায্যে এই চাকাটি কূপের মধ্যে ঘুরতে থাকে । তার ফলে পাত্র এক এক করে জল ভরে উপরে উঠে আসে এবং উপরে জল তুলে পুনরায় কূপের মধ্যে খালি অবস্থায় ফিরে যায় । কূপ থেকে জল তোলা অত্যন্ত পরিশ্রমসাধ্য বলে বর্তমানে অনেক স্থানে বৈদ্যুতিক পাম্পের সাহায্যে বহু কূপ বা নলকূপ থেকে জল তুলে সেচকার্য করা হয় । উত্তরপ্রদেশের বৈদ্যুতিক নলকূপের সংখ্যা খুবই বেশী । উত্তর ভারতের গাঙ্গেয় সমভূমি অঞ্চলে , উত্তরপ্রদেশ , বিহার , পাঞ্জাব , রাজস্থান এবং গুজরাট , মহারাষ্ট্র , অন্ধ্রপ্রদেশ ও তামিলনাড়ুর বিভিন্ন অঞ্চলে কূপের সাহায্যে যথেষ্ট জলসেচ হয় । সম্প্রতি পশ্চিমবঙ্গেও বিদ্যুৎ ও ডিজেলচালিত অগভীর ও গভীর নলকূপের সাহায্যে যথেষ্ট জলসেচ হচ্ছে ।
বন্টনঃ উত্তরপ্রদেশ , পাঞ্জাব , হরিয়ানা , বিহার , পশ্চিমবঙ্গ , তামিলনাড়ু , তেলেঙ্গানা , অন্ধ্রপ্রদেশ , গুজরাট প্রভৃতি রাজ্যে কূপ ও নলকূপের সাহায্যে জলসেচ করা হয় ।

৩. জলাশয়ের সাহায্যে জলসেচঃ উত্তর ভারতের নরম পলিগঠিত সমভূমিতে কূপ খনন করা যেমন সুবিধাজনক , দক্ষিণ ভারতেও তেমনি অবনমিত অঞ্চলে বা নদী উপত্যকায় বাঁধ দিয়ে বর্ষার জল ধরে রেখে জলাশয় নির্মাণ করার যথেষ্ট সুবিধা আছে । এইরকম জলাশয় গ্রীষ্মকালে বা অনাবৃষ্টির সময় শুকিয়ে যায় বলে সেচকার্যে অসুবিধা দেখা দেয় । এই অসুবিধা থাকা সত্ত্বেও তামিলনাড়ুর চিঙ্গলপুট , উত্তর ও দক্ষিণ আর্কট এবং অন্ধ্রপ্রদেশের নেল্লোর ও ওয়ারাঙ্গাল জেলার বিস্তীর্ণ অঞ্চলে জলাশয়ের সাহায্যে সেচকার্য হয় ।
বন্টনঃ দাক্ষিণাত্যের অন্ধ্রপ্রদেশ , তামিলনাড়ু , কর্ণাটক রাজ্যে এই পদ্ধতির প্রচলন সবচেয়ে বেশি হলেও পশ্চিমবঙ্গ , বিহার , উত্তরপ্রদেশ , ওড়িশা , মহারাষ্ট্র প্রভৃতি রাজ্যেও এই পদ্ধতিতে জলসেচ হয়ে থাকে ।