বহুমুখী নদী উপত্যকা পরিকল্পনা কি?

সংজ্ঞাঃ যে প্রকল্পে বিভিন্ন গঠনমূলক উদ্দেশ্যে নদীতে বাঁধ দিয়ে বাঁধের পশ্চাতে জল সঞ্চিত করে আবশ্যকমত তা কৃষিজমিতে সেচের জন্য খাল মাধ্যমে প্রেরণ করে কৃষিকার্যের প্রসার , শিল্প বিকাশের জন্য বাঁধের পশ্চাতে সঞ্চিত জল থেকে জলবিদ্যুৎ উৎপাদন , বন্যা নিয়ন্ত্রণ , মৎস্যচাষ , খাল মাধ্যমে নৌ – চলাচল , ভূমি ও বন সংরক্ষণ , জলক্রীড়া ও আমােদ – প্রমােদ প্রভৃতি বাস্তবায়িত করা হয় , তাকে বহুমুখী নদী উপত্যকা পরিকল্পনা বা বহু উদ্দেশ্যমূলক নদী উপত্যকা পরিকল্পনা বলে ।

উদ্দেশ্যঃ কিছুদিন পূর্বেও নদী থেকে কেবল জলসেচ ও জলবিদ্যুৎ উৎপাদন করা হত । কিন্তু বর্তমানে বিজ্ঞানের উন্নতির ফলে নদীকে বিভিন্ন কল্যাণকর উদ্দেশ্যে ব্যবহার করা সম্ভব হচ্ছে । নদীর ধ্বংস ক্ষমতাকে বিভিন্ন গঠনমূলক কার্যে রূপায়িত করিয়া তাহার মাধ্যমে নদী অববাহিকার সর্বাঙ্গীণ উন্নতির দিকে লক্ষ্য দেওয়াই হল বহুমুখী নদী উপত্যকা পরিকল্পনার উদ্দেশ্য । এগুলি নিচে বিস্তারিত আলোচনা করা হল –
১. জলসেচঃ বাঁধের পিছনে নির্মিত জলাধার থেকে খাল কেটে সংলগ্ন কৃষিজমিতে সারাবছর জলসেচের ব্যবস্থা করা এই প্রকল্পের অন্যতম প্রধান উদ্দেশ্য ।
২. জলবিদ্যুৎ উৎপাদনঃ এই প্রকল্পের মধ্য দিয়ে বাঁধের মাধ্যমে কৃত্রিম জলপ্রপাত সৃষ্টি করে তার সাহায্যে টারবাইন ঘুরিয়ে জলবিদ্যুৎ উৎপাদন করা হয় । 
৩. বন্যা নিয়ন্ত্রণঃ বর্ষার অতিরিক্ত জল জলাধার ও খালের মধ্যে সঞ্চয় করে রেখে নদী উপত্যকার বন্যা নিয়ন্ত্রণ করা বহুমুখী নদী পরিকল্পনার অন্যতম উদ্দেশ্য । 
৪. মৎস্যচাষঃ অভ্যন্তরীণ মৎসের চাহিদা মেটানোর উদ্দেশ্যে জলাধারগুলিতে মৎস্যচাষ করা হয় ।
৫. পরিবহণঃ এই প্রকল্পে নদী ও খালপথকে পরিবহণ কার্যে ব্যবহার করা হয় ।
৬. জল সরবরাহঃ শিল্পের প্রয়ােজনীয় জল সরবরাহ করা ও জলাশয়ের জল পরিস্তুত করে পানীয় জল সরবরাহ করা এই প্রকল্পের উদ্দেশ্য ।
৭. ভূমিক্ষয় রােধঃ এই প্রকল্পে জলাধার ও খালের পাড়ে বৃক্ষরােপণ করে ভূমিক্ষয় নিবারণের ব্যবস্থা করা হয় ।
৮. বিনােদনঃ বহুমুখী নদী পরিকল্পনায় সংশ্লিষ্ট জলাধারগুলির সৌন্দর্যায়ন ঘটিয়ে পর্যটন কেন্দ্ররূপে গড়ে তােলা ।
৯. সেতুঃ নদী পরিকল্পনার বাঁধগুলি সেতু হিসেবে কাজে লাগানাের চেষ্টা করা হয় ।
১০. জনস্বাস্থ্যঃ বহুমুখী নদী প্রকল্পে ম্যালেরিয়া ও জলবাহিত রােগের প্রকোপ নিয়ন্ত্রণ প্রভৃতির মধ্য দিয়ে স্থানীয় জনস্বাস্থ্যের খেয়াল রাখা হয় ।
১১. পর্যটন কেন্দ্র স্থাপনঃ প্রকল্প সংশ্লিষ্ট জলাশয়গুলি পর্যটকদের কাছে অত্যন্ত আকর্ষণীয় হয়ে ওঠে । তাই এই সমস্ত অঞ্চলে পর্যটন কেন্দ্রও গড়ে ওঠে ।

উদাহরণঃ বর্তমানে ভারতে বেশ কয়েকটি নদীতে এইরূপ বহুমুখী নদী – উপত্যকা পরিকল্পনার কাজ শেষ হয়েছে এবং অনেকগুলিতে কাজ প্রায় শেষ হয়ে এসেছে । নিম্নে ভারতের কয়েকটি উল্লেখযােগ্য নদী – উপত্যকা পরিকল্পনা সম্বন্ধে আলােচনা করা হল –
১. দামােদর উপত্যকা পরিকল্পনা [Read more…]
২. ময়ুরাক্ষী উপত্যকা পরিকল্পনা [Read more…]
৩. গঙ্গা উপত্যকা পরিকল্পনা বা ফরাক্কা প্রকল্প [Read more…]
৪. ভাকরা – নাঙ্গাল পরিকল্পনা [Read more…]
৫. মহানদী উপত্যকা পরিকল্পনা বা হীরাকুঁদ প্রকল্প [Read more…]
উপরিউক্ত নদী উপত্যকা পরিকল্পনাগুলি সম্পর্কে পরবর্তী পোস্টগুলিতে আলাদা আলাদাভাবে বিস্তারিত আলোচনা করা হল ।