দক্ষিণ ভারতের নদ নদী সম্পর্কে লেখ।

দক্ষিণ ভারত বা ভারতের উপদ্বীপ অঞ্চলের নদীগুলি প্রধানতঃ দক্ষিণ ভারতের প্রধান জলবিভাজিকা সহাদ্রি বা পশ্চিমঘাট পর্বত এবং বিন্ধ্য , মহাদেব , মহাকাল , সাতপুরা প্রভৃতি গৌণ জলবিভাজিকা থেকে উৎপন্ন হয়েছে । এই অঞ্চলের নদীগুলির মধ্যে বঙ্গোপসাগরে পতিত পূর্ববাহিনী নদী সুবর্ণরেখা , ব্রাহ্মণী , বৈতরণী , মহানদী , গোদাবরী , কৃষ্ণা ও কাবেরী এবং আরবসাগরে পতিত পশ্চিমবাহিনী নদী নর্মদা , তাপী ( তাপ্তী ) , সবরমতী , শরাবতী এবং কচ্ছের রণে পতিত লুনি প্রভৃতি নদী বিশেষ উল্লেখযােগ্য । পূর্ববাহিনী নদীগুলি পশ্চিমবাহিনী নদীগুলির তুলনায় প্রশস্ত এবং এদের অনেকের মােহনায় ব – দ্বীপ গড়ে উঠেছে । পশ্চিমবাহিনী নদীগুলির মােহনায় কিন্তু ব – দ্বীপ দেখতে পাওয়া যায় না । কেবল কচ্ছের রণে পতিত লুনি নদীর মােহনায় একটি ক্ষুদ্র ব – দ্বীপের অবস্থান প্রমাণ করে যে , লুনি এক সময় প্রচুর জল বহন করত । এই সকল নদী ব্যতীত পশ্চিমঘাট পর্বত থেকে উৎপন্ন বহু ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র নদী পশ্চিম উপকূলে পতিত হয়েছে । নিচে ভারতের উপদ্বীপ অঞ্চল বা দক্ষিণ ভারতের নদ নদী সম্পর্কে আলোচনা করা হল –
ক) পূর্ববাহিনী নদীঃ
মহানদীঃ এই নদীর মোট দৈর্ঘ্য প্রায় ৮৪২ কিঃ মিঃ । সাতপুরা পর্বতের অমরকণ্টকের নিকট থেকে মহানদী উৎপন্ন হয়ে মধ্যপ্রদেশ ও ওড়িশার মধ্য দিয়া প্রবাহিত হয়ে বঙ্গোপসাগরে পড়েছে । সুবর্ণরেখা ( ৪৩৩ কিঃ মিঃ ) পূর্ব – ভারতের মালভূমির অন্তর্গত ছােটনাগপুর মালভূমি থেকে উৎপন্ন হয়ে বিহার ও ওড়িশার মধ্য দিয়া প্রবাহিত হয়ে বালেশ্বরের নিকট বঙ্গোপসাগরে পড়েছে । এর উচ্চপ্রবাহে রাঁচীর নিকট হুড্রু জলপ্রপাত বিখ্যাত ।
উপনদীঃ বৈতরণী , ব্রাহ্মণী , শিবনাথ , ইব , মান্দ , হাসদো , জংক , ওং প্রভৃতি ।

গােদাবরীঃ এই নদীর দৈর্ঘ্য প্রায় ১,৫৬২ কিঃ মিঃ । দক্ষিণ – ভারতের সর্বাপেক্ষা পবিত্র নদী গােদাবরী মহারাষ্ট্রের নাসিক জেলার ট্রিমবাক নামক স্থান হইতে উখিত হইয়া সহ্যাদ্রি পর্বতে প্রায় ২০ কিঃ মিঃ পথ গিরিখাত অতিক্রম করে নাসিক শহর অবধি প্রবাহিত হয়েছে । পরে অন্ধ্রপ্রদেশের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হয়ে রাজমহেন্দ্রীর নিকট গৌতমী , বশিষ্টি ও বৈনতেয় —এই তিনটি শাখায় বিভক্ত হইয়া ব – দ্বীপ সৃষ্টি করে বঙ্গোপসাগরে পতিত হয়েছে । গোদাবরীকে ” দক্ষিণ ভারতের গঙ্গা ” নামে অভিহিত করা হয় ।
উপনদীঃ ইন্দ্রাবতী , প্রাণহিতা ( পেনগঙ্গা , ওয়ার্ধা ও বেনগঙ্গার মিলিত প্রবাহ ) ও মঞ্জিরা এর প্রধান উপনদী ।

কৃষ্ণাঃ এই নদীর দৈর্ঘ্য প্রায় ১,৪০০ কিঃ মিঃ । কৃষ্ণা নদীর উৎপত্তি হয়েছে পশ্চিমঘাট পর্বতে মহারাষ্ট্রের মহাবালেশ্বর নামক শৈল – শিখর থেকে । কৃষ্ণা পূর্ববাহিনী হয়ে মহারাষ্ট্র , কর্ণাটক ও অন্ধ্রপ্রদেশের মধ্য দিয়ে বঙ্গোপসাগরে পড়েছে । বিজয়ওয়াড়া শহরের পর থেকেই কৃষ্ণার মােহনায় একটি ব – দ্বীপ গড়ে উঠেছে এবং এটি গােদাবরী ব – দ্বীপের ঠিক দক্ষিণেই অবস্থিত ।
উপনদীঃ কৃষ্ণার একটি উপনদী ভীমা , ভীমাশঙ্কর নামক স্থান থেকে এবং অপর একটি উপনদী তুঙ্গভদ্রা ( তুঙ্গ এবং ভদ্রা এই দুইটি নদীর মিলিত প্রবাহ ) গঙ্গামূলা শৃঙ্গ থেকে সৃষ্ট । কয়না ও ঘাটপ্রভা নদী দুইটি কৃষ্ণার উৎসস্থলে মিলিত হয়েছে । এছাড়াও বেদবতী , মুসি , মালপ্রভা , ঘাটপ্রভা , পঞ্চগঙ্গা , দুধগঙ্গা প্রভৃতি কৃষ্ণার অন্যান্য উল্লেখযোগ্য উপনদী ।

কাবেরীঃ এই নদীর দৈর্ঘ্য প্রায় ৮০৫ কিঃ মিঃ ।  কাবেরী নদী কর্ণাটক রাজ্যের কুর্গ জেলায় ব্রহ্মগিরি ( ১,৩৪১ মিঃ ) পাহাড় থেকে উৎপন্ন হয়ে কর্ণাটক ও তামিলনাড়ুর মধ্য দিয়ে বঙ্গোপসাগরে পড়েছে । এর উচ্চপ্রবাহে অনেকগুলি জলপ্রপাত সৃষ্টি হয়েছে । এর মধ্যে শিবসমুদ্রম জলপ্রপাত উল্লেখযােগ্য । কাবেরী নদীতে বাঁধ দিয়ে কৃষ্ণরাজ সাগর নামক কৃত্রিম হ্রদের সৃষ্টি করে এর সাথে শিবসমুদ্রমকে যুক্ত করা হয়েছে । কাবেরীর মােহনায় ব – দ্বীপ অবস্থিত । তিরুচিরাপল্লীর পশ্চিমে কাবেরী দুই ভাগে বিভক্ত হয়েছে । উত্তরদিকের অংশকে বলা হয় কোলেরুণ এবং দক্ষিণ দিকের অংশকে বলা হয় কাবেরী । এই দুই শাখার মিলনস্থল থেকে ৭০ কিঃ মিঃ নিম্ন – অববাহিকায় এরা পুনরায় মিলিত হয়েছে । এদের মধ্যবর্তী অঞ্চলে আছে শ্রীরঙ্গম দ্বীপ । এর পর কোলেরুণ নদী উত্তর – পূর্বমুখী হইয়া সমুদ্রে পতিত হয়েছে । অপরদিকে কাবেরী নদী দক্ষিণমুখী হয়ে সমুদ্রে পড়েছে । শাখানদীগুলি কাবেরী ব – দ্বীপের জলসেচ – ব্যবস্থায় উল্লেখযােগ্য স্থান দখল করে । 
উপনদীঃ হিমবতী , বেদবতী , সিমসা ও ভবানী কাবেরীর উপনদী ।
পূর্ববাহিনী অন্যান্য নদীগুলির মধ্যে পেন্নার , পােন্নায়ার , পালার , তাম্ৰপর্ণী , ভাইগই প্রভৃতি উল্লেখযােগ্য । তবে এদের দৈর্ঘ্য তুলনামূলকভাবে কম । 

খ) পশ্চিমবাহিনী নদীঃ
নর্মদাঃ এর মোট দৈর্ঘ্য প্রায় ১,৩১২ কিঃ মিঃ ।  অমরকন্টক ( ১,৯৫৭ মিঃ ) পর্বত থেকে উৎপন্ন হয়ে বিন্ধ্য ও সাতপুরা পর্বতের মধ্যে অবস্থিত গ্রস্ত – উপত্যকার মধ্য দিয়ে পশ্চিমে প্রবাহিত হয়ে কাম্বে উপসাগরে পড়েছে । নর্মদা জব্বলপুরের নিকট মার্বেল পাহাড় ভেদ করে গভীর খাদ কেটে প্রবাহিত হয়েছে । এই পাহাড় থেকে নামার সময় নর্মদা সুন্দর একটি জলপ্রপাতের সৃষ্টি করিয়াছে । নর্মদার মােহনায় কাম্বে উপসাগরে ভারুচ ( পূর্বনাম ব্রোচ ) একটি উল্লেখযােগ্য শহর ও বন্দর ।
উপনদীঃ হিরণ , বর্ণা , কোলার , শের , বানজের প্রভৃতি নর্মদার উল্লেখযোগ্য উপনদী ।

তাপী বা তাপ্তিঃ এই নদীর দৈর্ঘ্য প্রায় ৭২৪ কিঃ মিঃ । তাপ্তি মহাদেব পাহাড় ( ৭৬২ মিঃ ) থেকে উৎপত্তি লাভ করে সাতপুরা ও অজন্তা পাহাড়ের মধ্যবর্তী সংকীর্ণ উপত্যকার মধ্য দিয়ে পশ্চিমে কাম্বে উপসাগরে পড়েছে । কাম্বে উপসাগরে তাপীর তীরে সুরাট একটি শহর ও বন্দর ।
উপনদীঃ পুনা , পাটকি , গির্না , বেতাল , অমরাবতী প্রভৃতি তাপীর উল্লেখযোগ্য উপনদী ।

সবরমতীঃ এই নদীর দৈর্ঘ্য প্রায় ৪১৪ কিঃ মিঃ । আরাবল্লী পর্বত থেকে উৎপত্তি লাভ করে গুজরাট সমভূমির মধ্য দিয়ে কাম্বে উপসাগরে পড়েছে ।

মাহীঃ মাহী নদীর মোট দৈর্ঘ্য প্রায় ৫৩৩ কিঃ মিঃ । এটি বিন্ধ্য পর্বত থেকে উৎপন্ন হয়ে খাম্বাত উপসাগরে পড়েছে ।
পশ্চিম উপকূলে পতিত অন্যান্য অল্প দৈর্ঘ্যের নদীগুলির মধ্যে উত্তর কঙ্কণে বৈতর্ণ , উলহাস , বশিষ্টি ও সাবিত্রী , উত্তর কর্ণাটকে সরাবতী , কালিন্দি , সরস্বতী ও নেত্রবতী বিশেষ উল্লেখযােগ্য ।