চা চাষের অনুকূল ভৌগােলিক পরিবেশ লেখ।

চা প্রধানত পানীয় ফসল । মৌসুমী অঞ্চলের পার্বত্য ও উচ্চভূমিতে জন্মে থাকে । একে বাগিচা ফসলও বলা হয় । চা চাষের অনুকূল ভৌগােলিক পরিবেশ দুভাগে বিভক্ত । যথা – ( ক ) প্রাকৃতিক পরিবেশ এবং ( খ ) অর্থনৈতিক পরিবেশ । নিচে এগুলি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হল –

ক. প্রাকৃতিক পরিবেশঃ চা চাষের অনুকূল প্রাকৃতিক পরিবেশগুলি হল – 
১. জলবায়ুঃ চা চাষের জন্য প্রচুর উষ্ণতা এবং বৃষ্টিপাত প্রয়ােজন । (a) উষ্ণতাঃ বার্ষিক গড় উষ্ণতা ৩৫ ° সেলসিয়াসের বেশি এবং ১৫ ° সেলসিয়াসের কম হলে চা গাছের পক্ষে ক্ষতিকারক । গড় উষ্ণতা ২৭ ° সেলসিয়াস চা চাষের পক্ষে আদর্শ । (b) বৃষ্টিপাতঃ চা চাষে প্রচুর বৃষ্টিপাতের প্রয়ােজন হয় । বার্ষিক গড় ১৫০ সে.মি. – ২৫০ সে.মি বৃষ্টিপাত চা চাষের পক্ষে বিশেষ উপযােগী ।
২. মৃত্তিকাঃ চা চাষের পক্ষে লােহা মিশ্রিত উর্বর দো – আঁশ মৃত্তিকা এবং জৈব পদার্থে সমৃদ্ধ আম্লিক পড়সল মৃত্তিকা বিশেষ উপযােগী ।
৩. ভূ – প্রকৃতিঃ চা চাষের জন্য যথেষ্ট ঢালু জমি ও জমিতে জল নিকাশের সুবন্দোবস্ত থাকা একান্ত প্রয়ােজন । গােড়ায় জল জমলে চা গাছের ক্ষতি হয় ।

খ. অর্থনৈতিক পরিবেশঃ চা চাষের অনুকূল অর্থনৈতিক পরিবেশগুলি হল –
১. শ্রমিকঃ বছরের বিভিন্ন সময়ে হাত দিয়ে বেছে চা পাতা তুলতে হয় । তাই চা চাষের জন্য প্রচুর সুলভ ও নিপুণ শ্রমিকের প্রয়ােজন ।
২. মূলধনঃ চা বাগিচা গড়ে তােলা রীতিমত ব্যয়সাপেক্ষ ব্যাপার । অন্যদিকে প্রতিযােগিতামূলক বাজারে উৎপাদনের উৎকর্ষ ঠিক রাখার জন্য সার , কীটনাশক , বাগিচা রক্ষণাবেক্ষণ এবং শ্রমিকের মজুরি ইত্যাদির জন্য প্রচুর মূলধন বিনিয়ােগ প্রয়ােজন হয় ।
৩. পরিবহনঃ সমস্ত রকম কাজের জন্য বাগিচা , বাজার ও বন্দরের মধ্যে উন্নত পরিবহন ব্যবস্থা গড়ে ওঠা দরকার ।
৪. চাহিদাঃ চা উৎপাদক অঞ্চল থেকে প্রধান ভােগকেন্দ্রগুলি সাধারণত দূরে থাকে । চায়ের অভ্যন্তরীণ ও বৈদেশিক বাজার বৃদ্ধি চা উৎপাদনের পক্ষে অনুকূল ।