শিল্পস্থাপনের অনুকূল পরিবেশ বা কারণগুলি কী কী ?

শিল্পস্থাপনের অনুকূল ভৌগােলিক পরিবেশ বা কারণগুলিকে দু’টি প্রধান ভাগে ভাগ করা যায় যথা – ( ক ) প্রাকৃতিক পরিবেশ বা কারণ এবং ( খ ) অর্থনৈতিক পরিবেশ বা কারণ । নিচে বিশদে এই দুটি আলোচনা করা হল –

( ক ) প্রাকৃতিক পরিবেশ / কারণঃ
( ১ ) কাঁচামালঃ কাঁচামালকে ব্যবহারের উপযােগী করে তােলাই হল শ্রমশিল্পের কাজ । তাই শিল্পস্থাপনের জন্য সবথেকে বেশি জরুরি হল কাঁচামাল অর্থাৎ কাঁচামালের সহজলভ্যতা । এই কাঁচামালের পরিমাণ ও প্রকৃতিগত বৈশিষ্ট্য এই প্রসঙ্গে উল্লেখযােগ্য।  যেমন – ( i ) ওজন হ্রাসকারী কাঁচামালঃ শিল্পপণ্য উৎপাদনের সময় ওজন হ্রাসকারী কাঁচামালের ওজন কমে যায় । যেমন – লৌহ ও ইস্পাত শিল্প , বক্সাইট , নরম কাঠ , আখ ইত্যাদি । এক্ষেত্রে সাধারণত শিল্পগুলি কঁচামাল উৎপাদক অঞ্চলের কাছেই গড়ে ওঠে । ( ii ) বিশুদ্ধ কাঁচামালঃ শিল্পপণ্য উৎপাদনের সময় বিশুদ্ধ কাঁচামালের ওজন কমে যায় না অর্থাৎ কাচামাল এবং শিল্পপণ্যের একই ওজন থাকে । যেমন – তুলাে , পাট , রেশম , পশম প্রভৃতি । তাই এই শিল্পগুলি কাঁচামাল উৎপাদক অঞ্চলের সঙ্গে সঙ্গে অন্যান্য পরিবেশ অনুকূল থাকলে দূরবর্তী অঞ্চলেও গড়ে ওঠে ।

( ২ ) শক্তি সম্পদঃ যে কোনাে শিক্ষা গড়ে তুলতে গেলে প্রয়ােজন শক্তির । আধুনিক যুগে শক্তি সম্পদ বলতে বিদ্যুৎকেই বােঝানাে হয় । এই বিদ্যুৎ তৈরির প্রধান উপাদান হল  কয়লা , খনিজ তেল ও জল । তাই এদের মধ্যে যেটি সহজলভ্য , সেই উৎসের কাছাকাছি শিল্প গড়ে ওঠে । যেমন , ভারতের পূর্বাঞ্চলের কয়লাক্ষেত্রে শিল্পের এক বৃহৎ কেন্দ্রীভবন ঘটেছে ।

( ৩ ) জলবায়ুঃ শিল্প স্থাপনে জলবায়ু প্রত্যক্ষ এবং পরােক্ষভাবে প্রভাব বিস্তার করতে পারে । যেমন – কৃষিভিত্তিক কাচামাল ব্যবহারকারী শিল্পগুলির ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট জলবায়ু কী ধরনের ফসল উৎপাদনের উপযােগী , তা নির্দিষ্ট শিল্পস্থাপনকে প্রভাবিত করে , যথা – ইক্ষু উৎপাদনের উপযুক্ত জলবায়ুতে ইক্ষু উৎপাদন ও চিনি শিল্প গড়ে ওঠে ; উদাহরণ – উত্তর ভারতের চিনি শিল্প । এছাড়া , জলবায়ুর প্রভাব কিছু কিছু শিল্পের বিস্তার লাভের সহায়ক , যেমন – আর্দ্র আবহাওয়ার জন্য মহারাষ্ট্রে বস্ত্রবয়ন শিল্প উন্নতিলাভ করেছে । পরােক্ষভাবে , জলবায়ু শ্রমিকের শক্তি ও কর্মদক্ষতা নিয়ন্ত্রণ করে । উষ্ণ ও আর্দ্র জলবায়ুতে শ্রমিকের কর্মশক্তি কমে যায় বলে এই অঞ্চলে শিল্পের প্রসার হয়নি । আবার নাতিশীতােষ্ণ অঞ্চলের পরিশ্রমের উপযােগী মৃদু শীতল জলবায়ু শিল্পোন্নতির একটি অন্যতম কারণ । অত্যধিক বৃষ্টিপাত যুক্ত অঞ্চলে পরিবেশ স্যাতসেঁতে ও অস্বাস্থ্যকর বলে নিরক্ষীয় অঞ্চলে বিশেষ কোনাে শিল্প গড়ে ওঠেনি । অবশ্য বর্তমানে বিজ্ঞানের উন্নতির ফলে জলবায়ুর প্রভাব অনেকটা কমানাে গেছে ।

( ৪ ) জল সম্পদঃ সরকম শিল্পস্থাপনের জন্যই জলের প্রয়ােজন হয় । তাই বেশিরভাগ শিল্পাঞ্চলই কোনাে নদী , হ্রদ বা সাগর উপসাগরের তীরে গড়ে উঠেছে । তবে এমন কয়েকটি শিল্প আছে যাতে জলের প্রয়ােজন খুবই বেশি; যেমন লৌহ ও ইস্পাত শিল্প , রাসায়নিক শিল্প , কাগজ শিল্প ইত্যাদি । উদাহরণস্বরূপ বলা যায় , দামােদর নদের তীরে দুর্গাপুর ইস্পাত শিল্প গড়ে উঠেছে । তবে শিল্পের নিজস্ব ব্যবহার ছাড়াও শিল্পকে ভিত্তি করে যে জনবসতি গড়ে ওঠে তার জন্যও পর্যাপ্ত সুলভ জলের প্রয়ােজন । তাই জল যেখানে দুষ্প্রাপ্য এমন অঞ্চলে শিল্প গড়ে ওঠা কষ্টসাধ্য । 

( খ ) অর্থনৈতিক পরিবেশ / কারণঃ
( ১ ) শ্রমিকঃ আধুনিক শিল্পস্থাপনে শ্রমিকের ভূমিকা অন্যতম । সুলভ এবং দক্ষ শ্রমিকের সরবরাহ শিল্পদ্রব্যের মান এবং মূল্য নির্ধারণে প্রভাব ফেলে । তাই জাপান ও চীনে শ্রমিক সুলভ এবং নিপুণ বলে শিল্পস্থাপন সহজ হয়েছে । অপরদিকে শ্রমিকের অভাব অস্ট্রেলিয়ায় শিল্পোন্নতি হতে বাধা সৃষ্টি করেছে । তবে বর্তমানে স্বয়ংক্রিয় যন্ত্রপাতি ব্যবহারের ফলে শিল্পস্থাপনে শ্রমিকের প্রভাব কিছুটা কমে আসছে ।

( ২ ) পরিবহনঃ সুবরকম অনুকূল পরিবেশ থাকা সত্ত্বেও উন্নত পরিবহন ব্যবস্থা না থাকলে শিল্পস্থাপন উন্নতি লাভ করে না । পরিবহন কাঁচামাল ও বাজারের মধ্যে সুষ্ঠু সমন্বয় সাধন করে । তাই পৃথিবীর সব উল্লেখযােগ্য শিল্পাঞ্চলেই রেলপথ , সড়কপথ , জলপথ চারদিকে জালের মতাে ছড়িয়ে রয়েছে । অপরদিকে উন্নত পরিবহন ব্যবস্থা না থাকায় অন্যান্য অনুকূল পরিবেশ থাকা সত্ত্বেও বুজিলে শিল্পোন্নতি ঘটেনি ।

( ৩ ) মূলধনঃ শিল্পস্থাপনের আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ শর্ত হল মূলধনের প্রাচুর্য । শিল্পের প্রয়ােজনীয় কাঁচামাল , শক্তি , স্থান , শ্রমিক , পরিবহন প্রভৃতি যােগানে বিশেষত প্রাথমিক অবস্থায় প্রচুর মূলধনের প্রয়ােজন হয় । সুতরাং মূলধনের সহজলভ্যতা শিল্পস্থাপনের সহায়ক । যেমন – ভারতের মহারাষ্ট্রে ও গুজরাটে বস্ত্রশিল্প কেন্দ্রীভূত হওয়ার একটি প্রধান কারণ এই অঞ্চলের ধনী ভাটিয়া , পার্শি ও গুজরাটি ব্যবসায়ীরা তাদের প্রচুর মূলধন এই শিল্পে বিনিয়ােগ করেছেন ।

( ৪ ) চাহিদাঃ শ্রমশিল্পজাত পণ্যের চাহিদার উপর শিল্পস্থাপন নির্ভর করে । তাই বর্তমানে ইলেকট্রনিক্স এবং কম্পিউটার সম্পর্কিত দ্রব্যের পৃথিবী জুড়ে বিপুল চাহিদা এই শিল্পের ব্যাপক উন্নতি ঘটিয়েছে । অপরদিকে পাটজাত দ্রব্যের চাহিদা হ্রাস পাওয়ায় এই শিল্পের ক্রম অবনতি ঘটছে ।

( ৫ ) সরকারি নীতি বা রাজনৈতিক অবস্থাঃ শিল্পস্থাপনে উৎসাহ দান , বিকেন্দ্রীকরণের পরিকল্পিত প্রয়াস , শুল্ক ছাড় নীতি , শিল্পের জন্য প্রয়ােজনীয় পরিকাঠামাের উন্নতি , আমদানি , রপ্তানির সুবিধা ইত্যাদি শিল্পস্থাপনকে প্রভাবিত করে । অন্যদিকে রাজনৈতিক অনিশ্চয়তা দেশে শিল্পস্থাপনে বাধা সৃষ্টি করে ।