সোনালি চতুর্ভুজ (Golden Quadrilateral)

সংজ্ঞাঃ ভারতের প্রধান চারটি মহানগর যথা – মুম্বাই, দিল্লি, কলকাতা ও চেন্নাই – কে ছয় লেনবিশিষ্ট (স্থানবিশেষে চার লেন) প্রায় ৫৮৪৬ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যসম্পন্ন সড়কপথ দ্বারা যুক্ত করা হয়েছে । এটিই সোনালি চতুর্ভুজ (Golden Quadrilateral) নামে পরিচিত ।

পরিচিতিঃ এটি কেন্দ্রীয় সরকার গৃহীত ও পরিচালিত একটি প্রকল্প । এই পরিকল্পনাটি গ্রহণ করা হয়েছিল ১৯৯৯ সালে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী মাননীয় অটলবিহারী বাজপেয়ীর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের মধ্য দিয়ে, কাজ শুরু হয়েছিল ২০০১ সালে এবং শেষ হয়েছিল ২০১২ সালে । এই সড়কপথটি ভারতের জাতীয় মহাসড়ক কর্তৃপক্ষ (NHAI) দ্বারা পরিচালিত হয় ।

সংযুক্তকারী শহর-নগরঃ সোনালি চতুর্ভুজ (Golden Quadrilateral) – এর অন্তর্ভুক্ত প্রধান চারটি মহানগরের সংযুক্তির বিবরণ নিম্নরূপ-

  • ১. দিল্লি – কলকাতাঃ সড়কপথের নাম – NH19;দৈর্ঘ্য প্রায় ১৪৫৩ কিমি ।
  • ২. দিল্লি – মুম্বাইঃ সড়কপথের নাম – NH48;দৈর্ঘ্য প্রায় ১৪১৯ কিমি ।
  • ৩. মুম্বাই – চেন্নাইঃ সড়কপথ – NH48;দৈর্ঘ্য প্রায় ১২৯০ কিমি ।
  • ৪. চেন্নাই – কলকাতাঃ সড়কপথ – NH16;দৈর্ঘ্য প্রায় ১৬৮৪ কিমি ।

এছাড়াও এই নেটওয়ার্কের মধ্যে পড়া অন্যান্য শহরগুলি হলো বেংগালুরু, আগ্রা, মথুরা, বারানসী, কটক, সুরাট, পুনে, কানপুর, জয়পুর, বডোদরা, আজমীর, ধানবাদ, ভাইজাগ, আহমেদাবাদ, দুর্গাপুর, বিজয়ওয়াড়া প্রভৃতি ।

গুরুত্বঃ সোনালি চতুর্ভুজ (Golden Quadrilateral) প্রকল্পের গুরুত্বগুলি হলো নিম্নরূপ –

    • ১. এই প্রকল্প দেশের মুখ্য শহর ও বন্দরগুলির মধ্যে দ্রুত পরিবহন ব্যবস্থা স্থাপন করেছে । 
    • ২. ছোট শহরগুলি থেকে সহজে বাজার অঞ্চলে পৌছানোর ব্যবস্থা সহজ হয়েছে । 
    • ৩. দ্রুত পরিবহনের ফলে কৃষিজাত ফসল বাজারজাতকরণে সুবিধা হয়েছে এবং ফসলের পচন ও অপচয়রোধ অনেকাংশে কমানো সম্ভব হয়েছে ।
    • ৪. শিল্পের প্রসার ও কর্মসংস্থান বৃদ্ধি পেয়েছে । 
    • ৫. শহর ও বন্দরের সরবরাহ অঞ্চলের আয়তন বৃদ্ধি পেয়েছে । 
    • ৬. রেলপথ, জলপথ ও আকাশপথ পরিবহনের উপর চাপ কিছুটা হলেও কমানো সম্ভব হয়েছে । 
    • ৭. দেশজুড়ে ট্রাক পরিবহনের ব্যাপক উন্নতি ঘটেছে । 
    • ৮. শিল্পের কাঁচামাল সংগ্রহ, উৎপাদিত দ্রব্য বাজারজাতকরণ, শিকড়আলগা শিল্পের দেশব্যাপী বিকেন্দ্রীভবণের প্রসার ঘটেছে । 
    • ৯. দেশব্যাপী সার্বিকভাবে অর্থনৈতিক উন্নয়নের প্রসার ঘটেছে ।

One comment

Leave a Reply