ফন (Foehn):

সংজ্ঞাঃ আর্দ্র বায়ু উপকূলীয় পর্বতের প্রতিবাত ঢাল বরাবর উপরে উঠে মেঘ ও বৃষ্টিপাত সৃষ্টি করার পর অনুবাত অঞ্চলে নেমে এসে উষ্ণ ও শুষ্ক বায়ুরূপে প্রবাহিত হয় । রাইন উপত্যকার মধ্য দিয়ে আল্পস পার্বত্য অঞ্চলে প্রবাহিত এরকম উষ্ণ ও শুষ্ক বায়ুপ্রবাহকে ফন (Foehn) বলে ।

প্রভাবিত অঞ্চলঃ আল্পস পর্বতের উত্তর ঢাল বরাবর নীচের দিকে নেমে এসে রাইন নদী উপত্যকা ও সুইজারল্যান্ডসহ মধ্য ইউরোপের বিস্তীর্ণ সমভূমি অঞ্চলে ফন বায়ুপ্রবাহ তার প্রভাব বিস্তার করে ।

বৈশিষ্ট্যঃ ফন – এর বৈশিষ্ট্যগুলি হল নিম্নরূপ –
ক) এটি একপ্রকার উষ্ণ (১০°C – ২০°C) ও শুষ্ক আঞ্চলিক বায়ুপ্রবাহ ।
খ) এটি শীতকালে প্রবাহিত হয় ।
গ) আল্পস পর্বতের নিম্নচাপ অগ্রসর হওয়ার ফলে ফনের উৎপত্তি হয় ।

প্রভাবঃ ফন – এর প্রভাবগুলি হল নিম্নরূপ –
ক) একপ্রকার উষ্ণ ও শুষ্ক বায়ুপ্রবাহ, যার প্রভাবে কোনো স্থানের উষ্ণতা আকস্মিকভাবে ২০°C – এরও বেশী বৃদ্ধি পেতে পারে ।
খ) ফনের প্রভাবে মেঘ ও বৃষ্টিপাত হয় ।
গ) পর্বতের পাদদেশীয় সমভূমি তুষারমুক্ত হয়ে তৃণ জন্মায় এবং পশুপালন সম্ভব হয় ।
ঘ) এটি আঙুর চাষের পক্ষে খুবই সহায়ক ।
ঙ) ফন হিমানী সম্প্রপাত ঘটাতে সাহায্য করে ।
চ) নাতিশীতোষ্ণ অরণ্যে দাবানল সৃষ্টিতেও এটি যথেষ্ট প্রভাব রাখে ।

2 thoughts on “ফন (Foehn):

  1. Pingback: বায়ুপ্রবাহ (Winds): | bhoogolok.wordpress.com

  2. Pingback: বায়ুপ্রবাহ (Winds): – bhoogolok.com

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.