চিনুক (Chinook):

☻ব্যুৎপত্তিগত অর্থঃ ‘Chinook’ একটি রেড ইন্ডিয়ান শব্দ, যার অর্থ হল ‘তুষার ভক্ষক’ ।

সংজ্ঞাঃ আর্দ্র বায়ু উপকূলীয় পর্বতের প্রতিবাত ঢাল বরাবর উপরে উঠে মেঘ ও বৃষ্টিপাত সৃষ্টি করার পর অনুবাত অঞ্চলে নেমে এসে উষ্ণ ও শুষ্ক বায়ুরূপে প্রবাহিত হয় । উত্তর আমেরিকার রকি পর্বতের অনুবাত ঢালে প্রবাহিত এরকম উষ্ণ ও শুষ্ক বায়ুপ্রবাহ চিনুক (Chinook) নামে পরিচিত ।

প্রভাবিত অঞ্চলঃ কানাডা ও রকি পর্বতের পূর্বঢাল থেকে পাদদেশীয় সমভূমির উপর প্রায় কয়েকশো কিলোমিটার পর্যন্ত অঞ্চলে চিনুক বায়ু তার প্রভাব বিস্তার করে ।

বৈশিষ্ট্যঃ চিনুক – এর বৈশিষ্ট্যগুলি হল নিম্নরূপ –
ক) এটি একপ্রকার উষ্ণ (১৮°C – ২১°C) ও শুষ্ক আঞ্চলিক বায়ুপ্রবাহ
খ) শীতের শেষে ও বসন্তের শুরুতে চিনুক প্রবাহিত হয় ।
গ) স্থানীয় বায়ুচাপ ও তাপের পার্থক্যই চিনুকের উৎপত্তির কারণ ।

প্রভাবঃ এটি একপ্রকার উষ্ণ ও শুষ্ক বায়ুপ্রবাহ, যার প্রভাবে কোনো স্থানের উষ্ণতা আকস্মিকভাবে ২০°C – এরও বেশী বৃদ্ধি পেতে পারে । চিনুকের প্রভাবে রকি পর্বতের পাদদেশীয় সমভূমি তুষারমুক্ত হয়ে তৃণ জন্মায় এবং প্রেইরী তৃণভূমিতে পশুপালন সম্ভব হয় । এর প্রভাবে এই অঞ্চলের জমে থাকা তুষার গলে গিয়ে উন্মুক্ত তৃণভূমি সৃষ্টি হয় বলে স্থানীয় রেড ইন্ডিয়ান অধিবাসীরা তাদের ভাষায় এই বায়ুপ্রবাহটিকে চিনুক (যার অর্থ ‘তুষার ভক্ষক’) নামে অভিহিত করেছে ।

3 thoughts on “চিনুক (Chinook):

  1. Pingback: বায়ুপ্রবাহ (Winds): | bhoogolok.wordpress.com

  2. Pingback: বায়ুপ্রবাহ (Winds): – bhoogolok.com

  3. বারিমন্ডল সম্পর্কে আলোচনা করলে খুব ভালো হয়

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.