বায়ুচাপ (Pressure of Air):

☻পৃথিবীর চারদিকে বায়ুমন্ডল বেষ্টন করে আছে । পৃথিবী তার মাধ্যাকর্ষণ শক্তির সাহায্যে বায়ুমন্ডলকে নিজের কেন্দ্রের দিকে আকর্ষণ করে । ফলে অন্যান্য পদার্থের মত বায়ুরও ওজন অনুভূত হয় । বায়ুর এই ওজনকেই বায়ুচাপ (Pressure of Air) বলে ।
সমুদ্রপৃষ্ঠে বায়ুর চাপ এক বর্গ ইঞ্চিতে ১৪.৭ পাউন্ড বা প্রতি বর্গ সেন্টিমিটারে ১ কিলোগ্রাম ওজনের সমান । আবার, অন্য হিসাবে এক ইঞ্চি পারদের চাপ ৪৩ মিলিবারের সমান ধরা হয় । যতই উপরে ওঠা যায় বায়ুস্তরের গভীরতা ততই কম হয় । সেইজন্য চাপও কমে যায় । বিভিন্ন স্থানের বায়ুর চাপের মধ্যে পার্থক্য থাকে । এমনকি সকল সময়েও এক স্থানে বায়ুর চাপ সমান থাকে না । ব্যারোমিটারে পারদ স্তম্ভের উচ্চতা দ্বারা বায়ুমন্ডলের চাপ মাপা হয় । সমুদ্রপৃষ্ঠে বায়ুর স্বাভাবিক চাপ ২৯.৯২ ইঞ্চি বা ৭৬০ মিলিমিটার পারদ স্তম্ভের সমান । বর্তমানে পৃথিবীর অধিকাংশ দেশেই বায়ুর চাপ ইঞ্চির পরিবর্তে মিলিবারে প্রকাশ করা হয় । ১ মিলিবার হল এমন একটি শক্তি যা প্রতি বর্গ সেন্টিমিটারে ১০০০ ডাইন (Dynes) চাপ দেয় । পারদ স্তম্ভের একের দশ ইঞ্চি প্রায় ২.৪ মিলিবারের সমান । সমুদ্রপৃষ্ঠের ২৯.৯২ ইঞ্চি বায়ুর চাপ ৭৬০ মিলিমিটার বা ১০১৩.২ মিলিবারের সমান হয়ে থাকে ।

বায়ুচাপ পরিমাপক যন্ত্রঃ বায়ুচাপ মূলত ব্যারোমিটার যন্ত্রের সাহায্যে মাপা হয় । নিম্নে কয়েক প্রকার ব্যারোমিটার সম্পর্কে আলোচনা করা হলো –
ক) টরিসেলি ব্যারোমিটারঃ ১৬৪৩ খ্রিষ্টাব্দে ইতালীয় পদার্থবিদ টরিসেলি প্রথম বায়ুচাপমাপক যন্ত্র আবিস্কার করেন এবং তার নামানুসারেই যন্ত্রটির নাম হয় টরিসেলি ব্যারোমিটার । এইপ্রকার ব্যারোমিটার ১০০ সেন্টিমিটার দীর্ঘ সমপ্রস্থচ্ছেদবিশিষ্ট মোটা একটি একমুখ বন্ধ কাঁচনলকে বিশুদ্ধ ও শুষ্ক পারদে পূর্ণ করা থাকে । বায়ুর চাপ পারদের মধ্য দিয়ে সঞ্চালিত হয়ে কাঁচনলের ভিতর উর্দ্ধমুখে ক্রিয়া করে পারদস্তম্ভকে উপরের দিকে ঠেলে রাখে, যার সাহায্যে বায়ুমন্ডলীয় চাপ নির্ণয় করা যায় ।
খ) ফর্টিনস ব্যারোমিটারঃ বিজ্ঞানী ফর্টিনের আবিষ্কৃত ব্যারোমিটারটিকে ফর্টিনস ব্যারোমিটার বলে । এই যন্ত্রে বায়ুচাপ নির্ভুলভাবে পরিমাপ করা হয় । এই ব্যারোমিটারে মূল স্কেলের সাথে ভার্নিয়ার স্কেল যুক্ত থাকে । এই ব্যারোমিটারের মধভাগে একটি পারদপূর্ণ পাত্র থাকে এবং এর সাথে একটি নল যুক্ত থাকে । পারদপাত্রের পারদতলকে সর্বদাই একই তলে রাখা হয় । বায়ুচাপ পরিবর্তনের সাথে সাথে এই নলে পারদের উচ্চতার তারতম্য ঘটে । বায়ুচাপ নির্ণয়ের সাথে সাথে এই যন্ত্র আবহাওয়ার পূর্বাভাস যেমন- বৃষ্টিপাত, ঝড় প্রভৃতির সম্ভাবনাকে নির্দেশ করে ।
গ) অ্যানির‍য়েড ব্যারোমিটারঃ ১৮৪০ খ্রিষ্টাব্দে ফরাসী বিজ্ঞানী লুসিয়ান ভিদি এইপ্রকার ব্যারোমিটার আবিষ্কার করেন । এতে কোনোপ্রকার তরল থাকে না । এইপ্রকার ব্যারোমিটার একটি ছোট ধাতব বাক্সে ব্যবহার করা হয়, যা অ্যানিরয়েড সেল নামে পরিচিত । এই বাক্সটি মূলত কপার ও বেরিলিয়ামের মিশ্রণ দ্বারা বানানো হয় । যন্ত্রের ভিতরের বায়ু বের করে নিলে বাইরের বায়ুর চাপে যন্ত্রের কাঁটা প্রভাবিত হয় ও চাপ নির্দেশিত হয় । এটি আকারে ছোট এবং সহজে বহন ও ব্যবহার করা যায় । নৌকা, ছোট বিমান, অফিসে এইপ্রকার ব্যারোমিটার অধিক ব্যবহার করা হয় । হালকা ও ছোট হওয়ায় পর্বতারোহীরা এই ব্যারোমিটার ব্যবহার করে থাকেন ।
এছাড়াও, ঘ) কিউ ব্যারোমিটার, ঙ) মার্কনি ব্যারোমিটার প্রভৃতিও অন্যান্য উল্লেখযোগ্য ব্যারোমিটার ।উল্লেখ্য, অল্টিমিটার যন্ত্রের সাহায্যেও উচ্চতার সাথে সাথে বায়ুচাপ মাপা হয়; যেমন- ব্যারোমেট্রিক অল্টিমিটার । এটি বিমান, হেলিকপ্টার প্রভৃতিতে ব্যবহার করা হয় ।
বর্তমানে বেশ কিছু উন্নত ও আধুনিক স্মার্টফোনেও বায়ুচাপের তথ্য পাওয়া যায় ।

প্রকারভেদঃ বায়ুচাপ মূলত দুই প্রকার । যথা – A. উচ্চচাপ (High Pressure) B. নিম্নচাপ (Low Pressure) । নীচে এই দুইপ্রকার বায়ুচাপ সম্পর্কে আলোচনা করা হলো –

A. উচ্চচাপঃ ভূ-পৃষ্ঠের কোনো নির্দিষ্ট স্থানে নির্দিষ্ট আয়তনের বায়ুর চাপ পার্শ্ববর্তী অঞ্চল অপেক্ষা বেড়ে গিয়ে যখন সেটি ১০১৩ মিলিবার বা তার বেশী হয়, তখন তাকে বায়ুর উচ্চচাপ (High Pressure) বলা হয় ।

বায়ুর উচ্চচাপ (High Pressure)

বায়ুর উচ্চচাপ (High Pressure)

উদাঃ পৃথিবীর উত্তরে সুমেরু ও দক্ষিণে কুমেরু অঞ্চলের বায়ুতে স্থায়ী উচ্চচাপ বিরাজ করে ।
বৈশিষ্ট্যঃ বায়ুর উচ্চচাপ – এর বৈশিষ্ট্যগুলি হলো নিম্নরূপ –
ক) উচ্চচাপ বায়ুর ঘনত্ব বৃদ্ধি করে ।
খ) উচ্চচাপযুক্ত অঞ্চলের বায়ু ওজনে যথেষ্ট ভারী হয় ।
গ) সংশ্লিষ্ট অঞ্চলের তাপমাত্রা হ্রাস পেয়ে বায়ুতে উচ্চচাপ সৃষ্টি হয় ।
ঘ) উচ্চচাপযুক্ত অঞ্চলে আবহাওয়া পরিস্কার ও দুর্যোগমুক্ত থাকে ।

B. নিম্নচাপঃ ভূ-পৃষ্ঠের কোনো নির্দিষ্ট স্থানে নির্দিষ্ট আয়তনের বায়ুর চাপ পার্শ্ববর্তী অঞ্চল অপেক্ষা কমে গিয়ে যদি সেটি ৯৮৬ মিলিবার বা তার কম হয়, তখন তাকে বায়ুর নিম্নচাপ (Low Pressure) বলে ।
উদাঃ পৃথিবীর নিরক্ষীয় অঞ্চলের বায়ুতে স্থায়ী নিম্নচাপ বিরাজ করে ।

বায়ুর নিম্নচাপ (Low Pressure)

বায়ুর নিম্নচাপ (Low Pressure)

বৈশিষ্ট্যঃ বায়ুর নিম্নচাপ – এর বৈশিষ্ট্যগুলি হলো নিম্নরূপ –
ক) নিম্নচাপ বায়ুর ঘনত্ব হ্রাস করে ।
খ) নিম্নচাপযুক্ত অঞ্চলের বায়ু ওজনে যথেষ্ট হালকা হয় ।
গ) সংশ্লিষ্ট অঞ্চলের তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেয়ে বায়ুতে নিম্নচাপ সৃষ্টি হয় ।
ঘ) নিম্নচাপযুক্ত অঞ্চলে আবহাওয়া ক্রমশ মেঘলা ও দুর্যোগময় হতে থাকে ।

গুরুত্বঃ বায়ুচাপ – এর গুরুত্বগুলি হলো নিম্নরূপ –
ক) বায়ুচাপের তারতম্যের কারণেই বায়ুপ্রবাহ হয় ।
খ) বায়ুচাপের পরিবর্তনের ফলে আবহাওয়ারও পরিবর্তন ঘটে ।
গ) গভীর নিম্নচাপ দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার সৃষ্টি করে ।
ঘ) আবহাওয়া মানচিত্রে বায়ুচাপের বন্টন ও প্রকৃতি দেখে আবহওয়ার পূর্বাভাস দেওয়া সম্ভব হয় ।

বায়ুচাপের তারতম্যের কারণ বা নিয়ন্ত্রকসমূহঃ পৃথিবীর বিভিন্ন স্থানে বায়ুচাপ বিভিন্ন রকমের হয়, সেই কারণগুলি হলো নিম্নরূপ –
ক) বায়ুর উষ্ণতার পার্থক্যঃ উষ্ণতায় বায়ু প্রসারিত হয় এবং এর ঘনাঙ্ক কমে যায় । ফলে এটি হালকা হয়ে পড়ে । হালকা বায়ুর চাপও কম হয় । আবার, উষ্ণ বায়ুর বাষ্প ধারণের ক্ষমতা বেশী বলে এর নিকটবর্তী অঞ্চলে জলাশয় থাকলে এটি আর্দ্র হয় ও কম চাপ দেয় । কিন্তু, শীতল বায়ুর বাষ্প ধরে রাখবার ক্ষমতা কম বলে বেশী চাপ দেয় । সেইজন্য উষ্ণতা বেশী হলে বায়ুচাপ কম হয় ।
খ) বায়ুতে জলীয় বাষ্পের পরিমাণের পার্থক্যঃ জলীয় বাষ্প বিশুদ্ধ বায়ুর থেকে হালকা । সেইজন্য জলীয় বাষ্পপূর্ণ আর্দ্র বায়ু শুস্ক বায়ুর থেকে হালকা এবং তার চাপও শুস্ক বায়ুর থেকে কম । এই কারণে শীতকালে বায়ুতে জলীয় বাষ্পের পরিমাণ কম থাকার কারণে বায়ুচাপ বেশী হয় এবং বর্ষাকালে বায়ুতে জলীয় বাষ্পের পরিমাণ বেশী থাকার কারণে বায়ুচাপ কম হয় ।
গ) ভূ-পৃষ্ঠের উচ্চতাঃ সমুদ্রতল থেকে যতই উপরে ওঠা হয় ততই বায়ুস্তরের গভীরতা কমতে থাকে । সেইজন্য বায়ুর চাপও কমে যায় । পরীক্ষা করে দেখা গেছে প্রতি ২৭৪ মিটার উচ্চতায় ৩৪ মিলিবার করে বায়ুর চাপ কমে যায় । আর ঠিক এই কারণেই পার্বত্য অঞ্চলে সমভূমি অপেক্ষা বায়ুচাপ কম হয় ।
ঘ) পৃথিবীর আবর্তন গতিঃ পৃথিবীর আবর্তন গতির ফলে কোরিওলিস বল সৃষ্টি হয় । এই কোরিওলিস বলজনিত কেন্দ্র বহির্মুখী শক্তির প্রভাবে বায়ুমন্ডলের বায়ু বাইরের দিকে চলে যেতে চায় এবং সেইজন্য বায়ুচাপেরও তারতম্য হয়ে থাকে ।
প্রসঙ্গত বলা যায়, প্রচন্ড ঠান্ডার জন্য দুই মেরু অঞ্চলে বায়ু উচ্চচাপযুক্ত হয় । আবর্তন গতির ফলে নিরক্ষীয় নিম্নচাপ অঞ্চলের দিকে ওই উচ্চচাপযুক্ত মেরুবায়ু ছিটকে যায় । ফলে সুমেরু বৃত্ত ও কুমেরু বৃত্তের কাছে বায়ুচাপ হ্রাস পেয়ে নিম্নচাপ বলয়ের সৃষ্টি করে । এছাড়া আবর্তন গতির ফলে নিরক্ষীয় অঞ্চলের উষ্ণ বায়ু উপরে উঠে উত্তর-দক্ষিণ উভয় দিকেই ছিটকে যায় । এর ফলে নিরক্ষীয় অঞ্চলে বায়ুর চাপ কমে যায় । কিন্তু ওই বায়ু ক্রান্তীয় অঞ্চলে পুনরায় নীচে নেমে আসে বলে বায়ুচাপ বেশী হয় ।
ঙ) ভূ-পৃষ্ঠে জলভাগ ও স্থলভাগের বন্টনঃ ভূপৃষ্ঠে জলভাগ ও স্থলভাগের বন্টন বায়ুর চাপের উপর যথেষ্ট প্রভাব ফেলে । সমুদ্রের উপর দিয়ে প্রবাহিত বায়ু আদ্র ও হালকা হওয়ার কারণে তার চাপ যেমন কম থাকে, তেমনই স্থলভাগের উপর দিয়ে প্রবাহিত বায়ু শুষ্ক ও ভারী হওয়ার কারণে তার চাপও বেশী হয় ।
চ) বায়ুমন্ডলের গভীরতাঃ বায়ুমন্ডলের ঘনত্ব বা গভীরতা বায়ুচাপের তারতম্যের অন্যতম নিয়ন্ত্রক । যে অঞ্চলে বায়ুমন্ডলের গভীরতা বেশী হয়, সেখানে বায়ুর অণুর পরিমাণ বেশি থাকার জন্য সেখানে বায়ুচাপ কম হয় । আবার, যে অঞ্চলে বায়ুমন্ডলের গভীরতা কম হয় সেখানে বায়ুতে অণুর পরিমাণ কম থাকে বলে বায়ুর চাপও কম হয় ।
ছ) অভিকর্ষজ টানঃ বায়ুর চাপের তারতম্যের অন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ নিয়ন্ত্রক হল অভিকর্ষজ টান । পৃথিবীর যে স্থান কেন্দ্রের যত নিকটবর্তী সেইস্থানে অভিকর্ষজ টানের প্রভাব ততই বেশী । পৃথিবীর আকৃতি অভিগত গোলকের মত হওয়ায় নিরক্ষীয় অঞ্চলে বায়ুচাপ কম হয় এবং মেরু অঞ্চলে বায়ুচাপ বেশী হয় ।
জ) বায়ুমন্ডলের গঠনকারী উপাদানঃ বায়ুমন্ডল গঠনকারী উপাদানগুলিও বায়ুচাপের তারতম্যের অন্যতম নিয়ন্ত্রক । স্থানবিশেষে বায়ুতে উপাদানের তারতম্য থাকলে তার পরিপ্রেক্ষিতে বায়ুর চাপেরও তারতম্য দেখা যায় । যেসব স্থানের বায়ুতে বালিকণা, ধূলিকণা, কার্বন কণা প্রভৃতি ভারী উপাদান থাকে, সেখানে বায়ুচাপ বেশী হয় । আবার, যেসব স্থানের বায়ুতে হাইড্রোজেন, ওজোন, হিলিয়াম প্রভৃতি হালকা উপাদান থাকে, সেখানে বায়ুচাপ কম হয় ।

15 thoughts on “বায়ুচাপ (Pressure of Air):

  1. Pingback: বাইস ব্যালট সূত্র (Buys Ballot’s law): – bhoogolok.com

  2. Pingback: টর্নেডো (Tornedo): – bhoogolok.com

  3. Pingback: ক্রান্তীয় ঘূর্ণবাত (Tropical Cyclone): – bhoogolok.com

  4. Pingback: ঘূর্ণবাত (Cyclone): – bhoogolok.com

  5. Pingback: কালবৈশাখী (Kalboishakhi): – bhoogolok.com

  6. Pingback: বোরা (Bora): – bhoogolok.com

  7. Pingback: চিনুক (Chinook): – bhoogolok.com

  8. Pingback: ফন (Foehn): – bhoogolok.com

  9. Pingback: মৌসুমী বায়ু (Monsoon Wind): – bhoogolok.com

  10. Pingback: স্থলবায়ু (Land Breeze): – bhoogolok.com

  11. Pingback: সমুদ্রবায়ু (Sea Breeze): – bhoogolok.com

  12. Pingback: বায়ুপ্রবাহ (Winds): – bhoogolok.com

  13. Pingback: বায়ুচাপ বলয় (Pressure Belts of Wind): – bhoogolok.com

  14. Pingback: প্রতীপ ঘূর্ণবাত (Anti-Cyclone): – bhoogolok.com

  15. Pingback: ঘূর্ণবাত (Cyclone): | bhoogolok.com

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.