হিমসিঁড়ি বা হিমসোপান (Glacial Steps):

☻সংজ্ঞাঃ পার্বত্য অঞ্চলের মধ্য দিয়ে হিমবাহ প্রবাহিত হওয়ার সময় বৈষম্যমূলক ক্ষয়কার্যের ফলে উপত্যকা বরাবর সিড়ির মত বহু ধাপ গঠিত হয় । এরকম ভূমিরূপকে হিমসিঁড়ি বা হিমসোপান (Glacial Steps) বলে । অনেক সময় হিমসিঁড়ির মধ্যে হিমবাহ গলে গিয়ে জল জমে হ্রদ তৈরী হয় । একে প্যাটার্নস্টার হ্রদ বলে ।

উদাঃ হিমালয় পর্বতে হিমবাহ অধ্যুষিত অঞ্চলে হিমসিঁড়ি বা হিমসোপান দেখা যায় ।

গঠনঃ হিমসিঁড়ি বা হিমসোপান – এর তিনটি অংশ । যথা –
ক) রাইডার – এটি উপত্যকার নিম্নপ্রান্ত ।
খ) রিগেল – এটি রাইডারের পিছনের অংশ এবং
গ) ট্রেড – এটি উদ্ধমুখী ঢালু অংশ ।

বৈশিষ্ট্যঃ হিমসিঁড়ি বা হিমসোপান – এর বৈশিষ্ট্যগুলি হলো নিম্নরূপ –
ক) এটি সুউচ্চ পার্বত্য অঞ্চলে গঠিত হয় ।
খ) এটি হিমবাহের ক্ষয়কার্যজনিত তারতম্যের ফলে গঠিত হয় ।

5 thoughts on “হিমসিঁড়ি বা হিমসোপান (Glacial Steps):

  1. Pingback: হিমবাহের ক্ষয়কার্যের পদ্ধতি / প্রক্রিয়া (Erosional Methods of Glacier) ও সৃষ্ট ভূমিরূপসমূহ (Landforms): | bhoogolok.wordpress.com

  2. Pingback: হিমবাহের ক্ষয়কার্যের পদ্ধতি / প্রক্রিয়া (Erosional Methods of Glacier) ও সৃষ্ট ভূমিরূপসমূহ (Created Landforms): | bhoogolok.wordpress.com

  3. Pingback: হিমবাহের ক্ষয়কার্য, ক্ষয়কার্যের প্রক্রিয়া ও সৃষ্ট ভূমিরূপসমূহ (Erosional Works of Glacier, Methods & Created Landforms): | bhoogolok.com

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.