মেসোপজ (Mesopause):

বুৎপত্তিগত অর্থঃ গ্রীক শব্দ “Mesos” এর অর্থ ‘মধ্যভাগ’ ও “Sphere” এর অর্থ ‘মন্ডল’ ।

সংজ্ঞাঃ মেসোস্ফিয়ার এবং থার্মোস্ফিয়ার এই দুই বায়ুস্তরের সীমা নির্দেশক সংযোগকারী উপস্তরকে মেসোপজ (Mesopause) বলে । মেসোস্ফিয়ারের বায়ুস্তর এই অঞ্চলে এসে থেমে যায়, তাই একে মেসোপজ বলে ।

বিস্তারঃ মেসোপজ প্রায় ৮০ কিমি উচ্চতায় অবস্থিত ।

বৈশিষ্ট্যঃ মেসোপজ – এর বৈশিষ্ট্যগুলি হলো নিম্নরূপ –
(ক)
মেসোপজ অঞ্চলে বায়ুর তাপমাত্রা হয় প্রায় -১০০° সেন্টিগ্রেড ।
(খ)
এখানে বায়ুর মিশ্রণ থেমে যায় । 
(গ)
এটি মেসোস্ফিয়ার এবং থার্মোস্ফিয়ার এই দুই স্তরের মধ্যবর্তী সীমা নির্দেশক উপস্তর ।

One comment

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  পরিবর্তন )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  পরিবর্তন )

Connecting to %s