বায়ুর ক্ষয়কাজ (Erosional Work Of Wind):

☻বায়ুপ্রবাহ দ্বারা শিলাস্তূপ তথা ভূপৃষ্ঠের ক্ষয়কে বায়ুর ক্ষয়কার্য বলে ।

                                                                                    বায়ুপ্রবাহের প্রধান কাজ ক্ষয়সাধন করা । শুষ্ক প্রায় উদ্ভিদশূন্য মরু অঞ্চলে বায়ুপ্রবাহ সহজেই বালুকণাকে উপরে তুলে উড়িয়ে নিয়ে যায় । ভূমিভাগ বা মাটির কাছাকাছি বায়ু প্রবাহের গতিবেগ কম হয় । কারণ ভূমিভাগের সঙ্গে সংঘর্ষের ফলে কিছু বায়ুপ্রবাহের শক্তি কিছুটা কমে যায় । আবার মাটি থেকে বেশি উপরে বায়ুতে বালুর পরিমাণ কমে যাওয়ার দরুন বায়ু প্রবাহের ক্ষয় করার শক্তি কম হয় । তাই এর মাঝামাঝি জায়গায় অর্থাৎ, মাটি থেকে মিটার খানেক উপরে বায়ুপ্রবাহের ক্ষয় করার ক্ষমতা সবচেয়ে বেশি হয় । কারণ এই অংশে একদিকে বায়ুপ্রবাহের গতি বেগ থাকে বেশি,আবার অপরদিকে বায়ুতে বালুকণার পরিমাণ ও থাকে বেশি । সেই জন্য ভূমির কিছু উপরে দন্ডায়মান পাথরের স্তূপ বা শিলাময় ভূমির ক্ষয় বেশি হয় । এর ফলে বৈচিত্রময় বিভিন্নপ্রকার ভূমিরূপের সৃষ্টি হয় ।

                                      সাহারা,গোবি,সোনেরান,কালাহারি ইত্যাদি প্রায় উদ্ভিদশূন্য শুষ্ক মরুভূমি অঞ্চলে বায়ুপ্রবাহের ক্ষয়কার্য বেশী হওয়ার কারনে অধিক পরিমানে বিভিন্নপ্রকার বৈচিত্রময় ভূমিরূপ দেখা যায় ।

4 thoughts on “বায়ুর ক্ষয়কাজ (Erosional Work Of Wind):

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.